সফরনামা

বাইতুল্লাহর ছায়ায়-২১

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) কান্নার রোল, আর অশ্রুর ঢল ধীরে ধীরে শান্ত  হলো এবং হৃদয়ের গভীরে পরম আশ্বাস ও প্রশান্তি সৃষ্টিকারী মুনাজাত শেষ হলো। অশ্রুভেজা মুখগুলো তখন বড় পবিত্র মনে হল...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর ছায়ায়-২০

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) সময় থেমে থাকে না, তন্দ্রার শান্তিদায়ক এক আচ্ছন্নতার মাঝে মধ্যরাত হয়ে গেলো। হঠাৎ মনে হলো, এ তাঁবু তো মুযদালিফায়, অথচ রাত্রিযাপনের সুন্নত হলো মিনায়। তো এককাজ ক...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর ছায়ায়-১৯

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) হারামের ইমাম শায়খ শোরায়ম ফজর পড়ালেন। তাঁর মিষ্টি মোলায়েম তিলাওয়াত খুব ভালো লাগে। আল্লাহর  কালামের শব্দগুলো তাঁর মুখ থেকে যেন বৃষ্টির বড় বড় ফোঁটার মত...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর ছায়ায়-১৮

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) আল্লাহর শোকর, আল্লাহ তাঁর গোনাহগার বান্দাকে বা-সালামাত পৌঁছে দিয়েছেন হারামের কাছে, একেবারে কাছে। কয়েক কদম এগুলেই দেখা যাবে হারামের চত্বর এবং দেয়ালের অং...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর ছায়ায় - ১৪

  (পূর্ব প্রকাশিতের পর) হোটেলের নির্জন ছাদে অন্ধকার আকাশে তারকার প্রদীপমালার আলোতে আমি যেন দেখতে পেলাম, স্পষ্ট করে দেখতে পেলাম আমার আগামী দিনের ভাগ্য। আমি যেন সন্তুষ্টির একটি ...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর মুসাফির-২৪

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) হোটেল কক্ষে আমি তখন একা।  ফোন বেজে উঠলো। অভ্যর্থনা থেকে বলা হলো, কেউ দেখা করতে চায়। একটু অবাক হলাম। কে হতে পারে এখানে আমার পরিচিত! বললাম, নীচে আসছি...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর মুসাফির-২২

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) পরদিন তথ্যমন্ত্রণালয় থেকে কর্মসূচী দেয়া হলো মাদায়েন পরিদর্শনের। হযরত অস্থির হয়ে বললেন, তাহলে কি ছদরের সাথে মুলাকাত হবে না? আমি সান্ত্বনা দিয়ে বললাম, আশা করি,...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর মুসাফির-২০

  (পূর্বপ্রকাশিতের পর) সফরের প্রথম দিবসে প্রবেশ করার পূর্বে আমি চাই, নয়দিনের সংক্ষিপ্ত সময়ে আমার দেখা ইরাক সম্পর্কে  এখানে সামান্য কিছু আলোকপাত করতে। একজন মানুষকে যেমন,...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর মুসাফির-১৯

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) আমার পরিচিত এক ব্যক্তি, অনেক দিন মক্কায় আছেন, তাকে বললাম, নবীজীর জন্মস্থান কোথায়, আমাকে কি নিয়ে যেতে পারেন? তিনি নির্লিপ্তভাবে জবাব দিলেন, তা তো জানি না! আম...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর মুসাফির-১৮

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) তায়েফকে বলা হয় শৈল শহর। পুরো শহরটা ছড়িয়ে আছে পাহাড়ের উপর উঁচুতে ঢালুতে, চড়াইয়ে উৎরাইয়ে অপূর্ব এক তরঙ্গ সৃষ্টি করে। সে তরঙ্গ যেন দৃষ্টির-পথে প্রবাহিত হয়ে হৃ...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর মুসাফির-১৭

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) হজ্বের দু’তিন দিন পর হযরতের ইরাক সফরের প্রস্ত্ততি শুরু হলো। দায়িত্ব ছিলো মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ছাহেবের উপর। তিনি আমার প্রতি যথেষ্ট স্নেহশীল ছিলেন। জেদ্দ...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর মুসাফির-১৬

তখন এ নির্জনতারও প্রয়োজন হবে না; কোন কিছুরই প্রয়োজন হবে না। তখন এই চাঁদকে যেমন দেখতে পাই তেমনি দেখতে পাবে বান্দা আল্লাহকে; দেখতে পাবে তাঁর জালাল ও জামাল এবং তাঁর মহিমা ও সৌন্দর্...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর মুসাফির-১৫

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) নূরানি চেহারার বৃদ্ধ আরব, উট- দু’টিকে সাদরে নহর করার স্থানে নিয়ে গেলেন এবং সত্যি বলছি, আল্লাহর নামে কোরবান হবে বলে, মনে হলো, ওরা খুব খুশী! আমি মুগ্ধ...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর মুসাফির-১৪

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) সূর্য যখন পূর্ণ অস্ত গেলো, হযরত তখন গাড়ীতে আরোহণ করলেন। যদিও গাড়ীর চালক তাড়াহুড়া করছিলো, কিন্তু হযরত সূর্যাস্তের পর রওয়ানা দেয়ার বিষয়ে অবিচল ছিলেন। এমনকি হ...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ

বাইতুল্লাহর মুসাফির-১৩

(পূর্ব প্রকাশিতের পর) মুআল্লিমের তাঁবুতে পৌঁছে হযরত সামান্য সময় বিশ্রা্ম নিলেন। তারপর প্রয়োজন থেকে ফারিগ হয়ে জামাতের সঙ্গে যোহর আদায় করলেন। তারপর সামান্য কিছু খাবার গ্রহণ করে তিলা...

মাওলানা আবু তাহের মেসবাহ