জুমাদাল উখরা ১৪২৯   ||   জুন ২০০৮

জ্ঞানের নগরী কূফা

হযরত উমর রা. এর খিলাফতের সময় যখন কুফানগরীর গোড়াপত্তন হল তখন সে শহরের কুরআন-সুন্নাহর মুআল্লিম হিসেবে তিনি আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.কেই নির্বাচন করেছিলেন এবং কুফার অধীবাসীদের উদ্দেশ্য করে ফরমান লিখেছিলেন, আমি আম্মার রা.কে আমীর বানিয়ে এবং আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.কে উযীর ও মুআল্লিম বানিয়ে তোমাদের কাছে প্রেরণ করছি। তাঁরা দুজনই বদর যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছেন এবং তাঁরা নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মর্যাদাপূর্ণ সাহাবীদের অন্তর্ভুক্ত। তাদের অনুগত থাকবে এবং তাদের অনুসরণ করবে। আব্দুল্লাহকে আমার প্রয়োজন ছিল, কিন্তু আমার প্রয়োজনের উপর আমি তোমাদের প্রয়োজনকে প্রাধান্য দিলাম।

কুফা নগরীতে এসে আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. ইলমের যে ঝর্ণাধারা প্রবাহিত করেছেন এবং তাঁর উত্তরসুরীরূপে এমন এমন ব্যক্তিত্ব তৈরি করেছেন যার তুলনা সে সময়েও খুব বেশি ছিল না।

কুফা নগরীর আরো সৌভাগ্য যে, হযরত আলী রা.-এর খিলাফতের সময় তা ছিল দারুল খিলাফাহ অর্থাৎ রাজধানী। আর আলী রা. সম্পর্কে বলা হয়েছে যে, তিনি হলেন জ্ঞাননগরীর দ্বার। তাই তাঁর আগমন ইলমের কেন্দ্ররূপে এ নগরীকে আরো সমৃদ্ধ করেছিল। তবে এ নগরীতে কুরআন-সুন্নাহর ইলমের সূচনা ও বিকাশ যেসব সাহাবীদের মাধ্যমে হয়েছে তাদের মধ্যে শীর্ষ স্থানে ছিলেন হযরত অব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.। কুফাবাসীদের ইলম ও ফযলের জন্য অন্যান্য সাহাবীও আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.-এর অবস্থানকেই যথেষ্ট মনে করতেন। তারপরও কুফার আলিমগণের অভ্যাস ছিল তারা ইলমের অন্যান্য কেন্দ্রে সফর করে জ্ঞান-ভান্ডারকে সমৃদ্ধ করতেন।

আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.-এর বিশিষ্ট শাগরিদ আলকামা রাহ. বলেন, আমি আবুদ্দারদা রা.-এর মজলিসে হাজির হলাম। তিনি আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন, কোথা থেকে এসেছ? বললাম, কুফা থেকে। তিনি তখন বললেন, তোমাদের ওখানে কি ইবনে উম্মে আব্দ অবস্থান করছেন না, যিনি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বিছানা, মিসওয়াক ও পাদুকা বাহক, যিনি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের একান্ত বিষয়াদি সম্পর্কেও অবগত আর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পক্ষ থেকে শয়তানের হাত থেকে মুক্তি লাভের ঘোষণাপ্রাপ্ত? -সহীহ বুখারী ৭/৭১, ৭৩

হযরত আলী রা. যখন কুফায় আগমন করেন তখন আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.-এর শাগরিদগণ ছিলেন নগরীর    উস্তাদ ও মুআল্লিম। ইলমের প্রচারে-প্রসারে তাঁদের নিমগ্নতা দেখে হযরত আলী রা. বললেন, ইবনে উম্মে আব্দ এঁদের কুফার বাতি বানিয়ে প্রস্থান করেছেন। -মানাকিবুল ইমামিল আযম, সদরুল আইম্মা মক্কী ২/১৪৩, ইমাম ইবনে মাজা আওর ইলমে হাদীস ২/৪০

 

 

advertisement