যিলহজ্ব ১৪৩৩   ||   নভেম্বর ২০১২

বাইতুল্লাহর ছায়ায়-২৭

মাওলানা আবু তাহের মিসবাহ

(পূর্ব প্রকাশিতের পর)

হজ্ব থেকে ফারেগ হওয়ার পর সবার অন্তরে আশ্চর্য একটি ভালো লাগার অনুভূতি সৃষ্টি হয়। কত বড় কঠিন দায়িত্ব, আল্লাহর রহমতে কত সহজে আদায় হয়ে গেলো! শোকর কৃতজ্ঞতার আবেগ যেন হৃদয় উপচে পড়ে। তোমার শোকর হে আল্লাহ! তোমার শোকর!

এই শোকর কৃতজ্ঞতার মান পরিমাণ সবার অন্তরে অবশ্য এক নয়; এটা যার অন্তরে যত অধিক যত গভীর এই দিনগুলোতে সে তত বেশী বিগলিত নিবেদিত হয়, তত বেশী যিকির, ইবাদাত তিলাওয়াতে মশগুল হয়। মানুষ যখন ঘরে ফেরার চিন্তায় ব্যস্ত এবং বাজারের কেনাকাটায় ব্যতিব্যস্ত, সে তখনঘরেরতাওয়াফে বেতাব, বেকারার!

উর্দূওয়ালারা বড় সুন্দর নাম দিয়েছে, ‘তাওয়াফে শোকরানা   তো যখনই সুযোগ হয় আল্লাহর বান্দা মাতাফে নেমে আসে, হাজরে আসওয়াদের সমান্তরালে দাঁড়ায় এবং বাইতুল্লাহর নূর নূরানিয়াতের সদা বহমান স্রোতে একাকার হয়ে যায়। কে জানে এমন দিন আর কবে আসবে জীবনে! আসবে তো! যদি না আসে! তাই প্রতিটি তাওয়াফ যেন আখেরি তাওয়াফ, এমন- ভাবে চলতে থাকে তাদের আল্লাহর ঘরের প্রদক্ষিণ, চলতেই থাকে। মাঝখানে দুরাকাত নামায, একটু মুনাজাত, আর প্রাণভরে আবে যমযম। আবার তাওয়াফ, ছালাত, মুনাজাত, আর যমযম। কিসমত যদি আরো খুলে যায় তাহলে হাজরে আসওয়াদের চুম্বন এবং মুলতাযামের আলিঙ্গন!

দুর্বল বান্দা যখন ক্লান্তি বোধ করে তখন হারামের ছায়ায় বসে আল্লাহর ঘর দেখতে থাকে, দেখতেই থাকে। কে জানে, আবার কবে দেখতে পাবো; পাবো তো!?

মৃদুমন্দ বায়ুতে বাইতুল্লাহর গেলাফে তরঙ্গ সৃষ্টি হয়, সে তরঙ্গ যেন চোখের তারা বেয়ে হৃদয়-সরোবরে গিয়ে তরঙ্গ সৃষ্টি করে।

পিপাসা পেয়েছে! এই তো কাছেই আছে আবে যমযম, পান করো, আকণ্ঠ পান করো; দেহের প্রতিটি কোষ যেন যমযমে সুসিক্ত হয়।

বান্দার কখনো ইচ্ছে হয়, আল্লাহর ঘর সামনে রেখে আল্লাহর কালাম তেলাওয়াত করে। বান্দা জানে, দেশে প্রবাসে, পথে প্রান্তরে যেখানেই সে তেলাওয়াত করে, আল্লাহ শোনেন, শুনতে পান। তবু তার ইচ্ছে হয়, আল্লাহর ঘরের সামনে হারামের ছায়ায় বসে তেলাওয়াত করে! আল্লাহকে আল্লাহর কালাম শোনায়! তেলাওয়াত যেন ঘরের সামনে নয়, ঘরের মালিকের সামনে!

এভাবে দেখতে দেখতে হজ্ব-পরবর্তী অল্পকটি দিন-রাত পার হয়ে যায়; আমারও পার হয়ে গেলো, যদিও তেমন করে নয় যেমন করে পার হতে দেখেছি আল্লাহর নেক বান্দাদের; তবু পার হয়ে গেলো।

আগামীকাল আছরের পর মদীনা শরীফের উদ্দেশ্যে আমাদের রওয়ানা হওয়ার কথা। শেষ রাতটি যাপন করলাম হারামের সেই চিরচেনা চিরআপন ভাবগম্ভীর পরিবেশে। প্রশান্তিতে কখনো চোখ লেগে আসে; উৎকণ্ঠায় কখনো চোখ খুলে যায়। একবার ঘড়ী দেখতে যাবো আর আযান শুরু হয়ে গেলো! আমার চোখে ঘুম ছিলো, রাতের চোখে ঘুম ছিলো না। সময়ের গতি একেবারেনির্ঘুম’!

ফজরের জামাত হলো। আজকের জামাতে লক্ষ মুমিনের কাতারে আমিও শামিল ছিলাম। আগামীকাল এখানে ফজরের জামাত হবে। লাখো মুমিনীন, আশেকীন তাতে শামিল হবে; আমি থাকবো না। গত রাতে যাদের জানাযা হলো, হারামের জামাতে তারা শরীক হতেন, আজ ফজরের জামাতে তারা ছিলেন না; আর কখনো তাদের দেখা যাবে না হারামের জামাতে। হে আল্লাহ, আমার যেন ...!

ফজরের পর তাওয়াফ করলাম, বিদায়ের তাওয়াফ নয়। আল্লাহর রহমতে আরো কিছু সময় আছে। এখনো হতে পারে আরো একটা-দুটো তাওয়াফ।

আকাশ বেশ মেঘাচ্ছন্ন, খুব শীতল বাতাস। তবে যখন তাওয়াফ শুরু করলাম, আরামদায়ক উষ্ণতা বোধ হলো কিছু শরীরের তাপে, কিছু হৃদয়ের উত্তাপে।

যোহরের পর যখন বিদায় তাওয়াফ শুরু করবো, ঝিরঝির বৃষ্টি শুরু হলো। খুশিতে আনন্দে আমারও চোখ ছেপেবৃষ্টিনামলো। এতদিন শুধু শুনেছি আল্লাহর ঘরে রহমতের বৃষ্টির কথা; রহমতের বৃষ্টিতে ভিজে ভিজে আল্লাহর বান্দাদের তাওয়াফ করার কথা। শুনেছি, পড়েছি, আজ নিজের চোখে দেখতে পেলাম রহমতের বৃষ্টি এবং বৃষ্টির রহমত বর্ষিত হওয়ার  দৃশ্য। এমন অপার্থিব দৃশ্যের কী বিশেষণ হতে পারে! বলতে ইচ্ছে করেজান্নাতি দৃশ্য জান্নাতে তো আহলে জান্নাতের উপর রহমতের বৃষ্টিবর্ষণ হবে। তো সে দৃশ্য হবে আরো সুন্দর, এমন সুন্দর যা কেউ কখনো দেখেনি, শুনেনি, এমনকি কল্পনাও করেনি। আজকের দৃশ্য হয়ত সে দৃশ্যের পূর্বাভাস মাত্র।

ঝিরঝির বৃষ্টিতে ভিজে ভিজে তাওয়াফ শুরু করলাম। সে তাওয়াফের স্বাদ লজ্জত এবং শান্তি প্রশান্তি ছিলো অন্য কিছু। আমার জীবনের বৃষ্টিভেজা একমাত্র তাওয়াফ। এখনো যেন তার স্বাদ লেগে আছে সর্বঅঙ্গে, সর্বসত্তায়। কী সকূন সাকীনা প্রতি কদমে! কী আশ্বাস আশ্বস্তি প্রতি পদক্ষেপে!! উপর থেকে রহমতের ফিরেশতারা যেন গোলাবজলছিটিয়ে দেয়! আহা, এমন তাওয়াফ আবার যদি নছীব হয়!

রহমত যখন নেমে আসে এভাবেই নেমে আসে! আজ আসওয়াদেরও চুম্বন-স্পর্শ লাভ হলো, আল্লাহর কোন বান্দাকে কষ্ট না দিয়ে। মুলতাযামেও বুক লাগাবার তাওফীক হলো। ঘরের দুয়ার ভেজা, আমারও বুক ভেজা এবং চোখ ভেজা। মুলতাযামে বুক লাগিয়ে ভিজলাম, কাঁদলাম, চাইলাম এবং যদি বলি, কিছু পেলাম! দুয়ারে দাঁড়িয়ে ভিজতে থাকা ভিখারীকে তো তাঁর বান্দারাও ফিরিয়ে দেয় না! বুকটা তখন ভরে উঠলো আশায়, ভরসায়, আশ্বাসে বিশ্বাসে। তাই প্রাণভরে চাইলাম নিজের জন্য, মা-বাবার জন্য, পরিবার পরিজনের জন্য, দেশ সমাজের জন্য এবং সমগ্র মুসলিম উম্মাহর জন্য।

আল্লাহর ঘরের ছাদ থেকে রহমতের ধারা নেমে আসছে মীযাবে রহমত বেয়ে। নীচে অভূতপূর্ব দৃশ্য। বড় মধুর প্রতিযোগিতা। আমাদের পক্ষে দূর থেকে শুধু দেখা আর আফসোস করাই সম্ভব; কাছে যাওয়ার কথা কল্পনা করাও কঠিন। কিন্তু আল্লাহ তাঁর কমযোর বান্দাকেও মাহরূম করলেন না। হাতীমে দাখেল হওয়ার যে পথটি সেখানে এসে দেখি মীযাবে রহমতের পানি স্রোতের মত বের হয়ে আসছে। আশ্চর্য রকম শীতল পানি। অাঁজলা ভরে সে পানিই মাথায় দিলাম। সর্বাঙ্গ যেন শীতল হয়ে গেলো।

এই সফরে প্রথমবার যখন আল্লাহর ঘরের দীদার হলো তখন  যেমন পিপাসা ছিলো, আজ বিদায়ের মুহূর্তে সেই পিপাসা যেন আরো তীব্র হলো। প্রতিদিনের এত দীদার, এত যমযম তবে কিসের জন্য! তাহলে কি পিপাসা নিবারণের জন্য নয়, আরো পিপাসা নিয়ে যাওয়ার জন্য! হয়ত!

ঝিরঝির বৃষ্টিতে ভিজে শেষবারের মত আল্লাহর ঘর দেখছি, আর কাঁদছি। আল্লাহর ঘরের সামনে বৃষ্টির পানি আর চোখের পানি আজ একাকার হলো। কষ্টের মধ্যেও ভিতরে যেন একটু খুশির ছোঁয়া লাগলো। এই বৃষ্টিতে আজ আল্লাহর ঘর ভিজেছে, আমিও ভিজেছি। আজ বিদায়ের বিষণ্ণ মুহূর্তে ঘরের গেলাফের সঙ্গে এই যে একটুবৃষ্টি-বন্ধনঅবশ্যই তা একমিষ্টি অর্জন এই সুখের স্মৃতিটুকু বুকে ধারণ করে বিদায় গ্রহণের তো কিছু না কিছু আনন্দ আছে!

দাও হে আল্লাহ আরো বৃষ্টি দাও! আরো ভিজিয়ে দাও, তোমার ঘরকে, তোমার বান্দাকে।

বান্দার মিনতির লাজ আল্লাহ যেন রক্ষা করলেন, শুরু হলো মোষলধারে বৃষ্টি। কত ভাষায়, কত গানে কবিতায় বৃষ্টিতে ভেজার আনন্দের কথা কত কবি কতভাবে লিখেছেন, ঘর ঘরের তাওয়াফীর এই যে একসঙ্গে ভেজার আনন্দ, এর কি কোন তুলনা আছে, কোন উপমা আছে! জান্নাতে যদি বৃষ্টি হয়, আর সেই বৃষ্টিতে যদি ভেজা যায়, তাহলেই শুধু আমি খুঁজে পাবো আজকের এই বৃষ্টিতে ভেজার আনন্দের উপমা।

ইচ্ছে হয়, অনন্তকাল যেন বৃষ্টি হয়, আর এভাবে দাঁড়িয়ে থাকি আল্লাহর ঘরের সামনে, এভাবে ভিজতে থাকি আল্লাহর ঘরের সঙ্গে!

কিন্তু হলো না। আরো বৃষ্টি হলো, অনেক বৃষ্টি হলো, অনেক্ষণ ধরে বৃষ্টি হলো, কিন্তু আমার আর ভেজা হলো না! বুকের ভেতরে ধুক করে যেন একটি শব্দ বেজে উঠলো, ‘বিদায়’! সময় হয়ে গেছে; বিদায় হাতছানি দিয়েছে! আর বিদায়ের হাতছানি কে কবে এড়াতে পেরেছে! বৃষ্টিতে ভিজে ভিজে আল্লাহর ঘর দেখে দেখে শেষবারের মত যমযম পান করে নিলাম। ভিতর থেকে কান্নাগুলো যেন হু হু করে বের হয়ে এলো।

হে আল্লাহর ঘর, আবার যেন আসা হয়, আবার যেন দেখা হয়, আবার যেনবৃষ্টিহয়!

***

মেঘাচ্ছন্ন আকাশ এবং মেঘাচ্ছন্ন হৃদয় সঙ্গে করে প্রিয় নবীর প্রিয় শহর মদীনার পথে রওয়ানা হলাম। মুআল্লিমের দফতরের সামনে বাসের ভেতরেই বসিয়ে রাখা হলো দুই ঘণ্টার বেশী সময়। ধৈর্যের মাঝারি আকারের একটা পরীক্ষা হয়ে গেলো।

আল্লাহ জানেন, কে উত্তীর্ণ হলো, কে হলো না। ভরসা শুধু এই যে, তার মাগফেরাতের দুয়ার উন্মুক্ত সবার জন্য। আমার শুধু মনে হলো, আল্লাহর ঘরের সঙ্গে আদবের খেলাফ যা কিছু হয়েছে তা থেকে পাকছাফ করে আল্লাহ আমাদের বের করতে চেয়েছেন; তাই গায়ব থেকে তিনি তারবিয়াতের এই ব্যবস্থা করেছেন। শোকর আলহামদু লিল্লাহ। কত নাফরমানি হয়, আদবের কত খেলাফ হয়, তবু বান্দাকে তিনি মুহববত করেন এবং সামান্য সামান্য কষ্ট দিয়ে বান্দাকে পাকছাফ করেন।

আছরের নামাযের জন্য দয়া করে নামতে দেয়া হলো এবং কয়েক ফোঁটা পানির অযু দিয়ে নামায আদায় করা হলো।

গাড়ী রওয়ানা হলো। পথের ঘটনা আছে অনেক, দুর্ঘটনাও আছে দুএকটি। শিক্ষারও বিষয় আছে কিছু কিছু। থাক। পথে শেষ রাতের আকাশে চাঁদ দেখেছি। দেখেছি চাঁদের বিষণ্ণ জোসনা! সেই চাঁদের কথা এবং তার বিষণ্ণ জোসনার কথাও থাক। এত কথা লেখার, এত কথা পড়ার উদ্দেশ্য কী? আমি লিখবো কেন? আমার পাঠক পড়বে কেন? কল্যাণ লাভের জন্যই তো! কল্যাণের উপকরণ আলহামদু লিল্লাহ আশা করি যথেষ্ট হয়েছে। এখন প্রয়োজন শুধু সামান্য কিছু অর্জন। দু করি, আল্লাহ যেন কবুল করেন লেখক-পাঠক উভয়কে?

অর্ধেকের কিছু বেশী পথ যাওয়ার পর একদল বানরের সঙ্গে দেখা হলো। দেখা হলো, ঠিক নয়; চলন্ত গাড়ী থেকে শুধু আমি দেখলাম, ওরা আমাকে দেখতে পায়নি।

বলার মত বিষয় হলো, জীবনে এই প্রথম বানরের প্রতি মনে মায়া জাগলো। হোক না বানর, তবু তো মদীনার কত কাছে থাকে। ইমাম ছাহেব বললেন, সুযোগ পেলে এরা নাকি গাড়ীর উপর এবং মানুষের উপর হামলা করে। মন কিন্তু কথাটা মেনে নিতে চাইলো না। এখানকার বানর অবশ্যই অন্যরকম বানর হবে। একবার ইচ্ছে হলো, গাড়ী থামাতে বলি, বানরগুলোর কাছে গিয়ে সবাইকে দেখাই, মদীনার পড়শী বানর কত শরীফ বানর। দেখো তো, কত শারাফাতের সঙ্গে আমার হাত থেকে কলাটা নিলো, খোসাটা আমার দিকে ছুঁড়ে পর্যন্ত মারলো না!

আমার ইচ্ছের কথা শুনে ইমাম ছাহেব শুধু হাসলেন। হয়ত ভাবলেন, পাগল!

মদীনার খুব কাছে, এত কাছে যে, মসজিদুন্-নবীর আলোকিত মিনারগুলো দেখা যায়, এখানে হলো মাওকিফুল হিজরাহ। এখানে বাস থামে এবং মদীনার মুসাফিরদের খুব ইকরামের সঙ্গে মেহমানদারি করা হয়। সেই নূরের যামানা থেকে মেহমানদারি তো মদীনার বাসিন্দাদের স্বভাব ফিতরত। এখনো তার ছাপ আছে তাদের মধ্যে। আমাদের বাসে পানি খাবারের প্যাকেট নিয়ে যিনি উঠলেন, তিনি হাসিমুখে এমন সুন্দর করে সালাম দিলেন যে, আমাদের সব কান্তি দূর হয়ে গেলো। এই মধুর হাসি, এই সুন্দর সালাম আমাদের অন্তরে আশ্বাসের শীতল পরশ বুলিয়ে দিলো। যেন বলা হলো, এসো এসো নবীর মদীনায় এসো। নবীর মদীনা তোমাদের বরণ করে নেবে, তোমাদেরঅাঁচলপূর্ণ করে দেবে।

দূর থেকে মদীনার শেষ রাতের আলো দেখছি আর দুরূদ পড়ছি। মসজিদুন্-নবীর নূরানী মিনার দেখছি আরবালাগাল উলা’-এর শারাবান তাহূরা পান করছি। নিয়মের দাবীতে জিসিম এখানে পড়ে থাকলেও মন যে ছুটে ছুটে যায় যে সবুজ গম্বুজ দেখা যায় মোকামে!

ত্রিশ মিনিট হলো, একঘণ্টা হলো, দেড় ঘণ্টা এবং দুঘণ্টা, কিন্তু গাড়ীর চালকের খোঁজ নেই। আমাদের পাসপোর্ট তারই যিম্মায় এবং সেগুলো নিয়ে নির্ধারিত কাউন্টারে তারই যাওয়ার কথা। কত বাস এলো এবং যথারীতি রওয়ানা হয়ে গেলো। আমরা বসে আছি তো বসেই আছি। শুধু বসে থাকা অবশ্য নয়; বসে আছি, আলোকিত মিনার দেখছি আর দুরূদ পড়ছি-

صلى الله على محمد، صلى الله عليه وسلم

দেশ জাতি হিসাবে আমাদের রক্তে ধৈর্য সহিষ্ণুতার উপাদান যে পরিমাণ আছে, তার চেয়ে অনেক বেশী ধৈর্যের পরিচয় ইতিমধ্যেই দেয়া হয়ে গেছে, সুতরাং আর কত! যবান এমনই সংযম হারালো যে, আল্লাহ পানাহ! কিন্তু গালমন্দ যতই হচ্ছে তাতে নিখোঁজ চালকের হদীস তো আর মিলছে না। এতক্ষণে একজন বুদ্ধির কথা বললেন, নেমে দেখা দরকার ঘটনা কী! ঘটনা হলো, চালক বেচারা বিশ্রামাগারে গভীর ঘুমে অচেতন। কাজটা হয়ত অন্যায়, কিন্তু ঘুমের প্রয়োজনটাও সত্য। তার চেয়ে বড় কথা, যদি পর্দার আড়ালের সত্য এই হয় যে, করুণা করে যিনি এই পবিত্র শহরের এত কাছে এনেছেন, তিনি আমাদের গাফলত দিলেরমুর্দেগিদেখে নাখোশ হয়েছেন।

তারপরো মুহববত করে আমাদের তারবিয়াতের ইন্তিযাম করেছেন। চালকের গাফলত হচ্ছে উপলক্ষ, আসল উদ্দেশ্য হচ্ছে আমাদের গাফলত দূর করা। হাকীকত তো এই যে, নবীর শহরে আসার পথেও এমন গাফলত যাদের, তাদের তো চিরকালের জন্য মাহরূম হওয়ার কথা। তার পরিবর্তে যদি কিছু সময়েরতারবিয়াতি বিলম্বহয় তাহলে তো অন্যের প্রতি অসন্তুষ্টির পরিবর্তে সর্তক হওয়া এবং ইসতিগফার করাই কর্তব্য।  মোটামুটি একথাগুলো ইমাম সাহেব সবাইকে বোঝানোর চেষ্টা করলেন। ফলে চালকের প্রতি ক্রোধের কিছুটা উপশম হলো এবং অল্পের উপর দিয়ে, অর্থাৎ দুচারটে বাংলামিষ্টিশব্দের উপর দিয়েই বিষয়টা পার হয়ে গেলো।

আবার দেখতে পেলামমাদানী আখলাক’! সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ঘটনা জেনে এমন পেরেশান হলেন যেন তার নিজের অপরাধ! চালককে অতি মৃদু তিরস্কার করলেন, আর আমাদের ইমাম ছাহেবের কাছে, বলতে সঙ্কোচ হয়, বারবার ক্ষমা প্রার্থনা করলেন। তারপর নিজের তত্ত্ববাধানে খুব সংক্ষেপে আনুষ্ঠানিকতা সেরে আমাদের রওয়ানা করিয়ে দিলেন। দেখলাম আর মনে মনে কামনা করলাম; আমাদের শরীরে মাটি যে ভূখন্ডেরই হোক, আখলাক যেন হয় মদীনার, মদীনাতুন্-নবীর! হে আল্লাহ, যে দেশ, যে মাটি, যে বাতাস, যে পানি তুমি আমাদের জন্য নির্ধারণ করেছো তাতে আমরা খুশী! শুধু এই মিনতি, তোমার পেয়ারা হাবীবকে যারা একদিন

طلع البدر علينا ... أيها المبعوث فينا ...

বলে বরণ করেছে তাদের কণ্ঠের সেই মধু এবং তাদের চরিত্রের সেই মাধুর্য আমাদেরও দান করো, আমীন।

***

ভোরের আযান হলো। সেই আযানের সুমধুর ধ্বনি আমাদের পর্যন্ত এসে পৌঁছলো। কিছুক্ষণের মধ্যে আমরা নবীর মদীনায় দাখেল হলাম। ভাবের ঘোরে আচ্ছন্ন মন যেন খোশখবরি দিলোএসো সফলতার দিকে, এসো সফলতার দিকে, আজকের আযানের আহবান তোমার জন্য, হে মুসাফির, তোমার জন্য।

এবার আমাদের মদীনার বাসস্থান হলো কেবলার দিকে এক কিলোমিটারেরও বেশী দূরে। সুতরাং ফজর ঘরেই পড়তে হলো।

শিকদার সাহেব, আমার প্রতি কেন এত দয়া করলেন জানি না, বললেন, আপনার কাছে একটি আব্দার আছে, শোনবার আগেই বলুন, মঞ্জুর করলাম।

বললাম। তিনি বললেন, সালাম পেশ করার জন্য আমাকে আপনার সঙ্গে নিয়ে যাবেন। আবারও বুকের ভিতরে কেমন একটি শীতল স্পর্শ অনুভব করলাম, যেন আশ্বাস পেলাম, ‘যাও, সঙ্গে নিয়ে যাও, এইমাযূরমানুষটির উছিলায় তোমারও সালামের নাযরানা কবুল হতে পারে।

বাবুস-সালামের সামনে এসে দাঁড়ালাম এবং বিশ্বাস হলো, আমি সত্য আশ্বাস লাভ করেছি। কখনো যা দেখিনি, শুনিনি, তাই আজ দেখলাম এবং শুনলাম। শিকদার সাহেব দেখি থরথর করে কাঁপছেন। আশঙ্কা হলো, অসুস্থতার প্রকোপ। না, ভুলটা ভাঙ্গলো যখন তিনি বললেন, হুযূর, আপনি যান, আমার সাহস হয় না। সারা জীবন কী করছি, কী মুখ লইয়া যামু!

অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকলাম, তাকিয়েই থাকলাম। আহা, এমন করে যদি ভাবতে পারতাম, জীবনে একবার, অন্তত একবার! সত্যি তো! এত দিন কী করেছি, আজ কোন মুখে গিয়ে দাঁড়াই!

হঠাৎ ভিতর থেকে এই আয়াতের উদ্ভাস ঘটলো-

ولو انهم اذ ظلموا انفسهم جاؤوك فاستغفروا الله واستغفر لهم الرسول لوجدوا الله توابا رحيما.

নিজেদের উপর অবিচার করার পর যদি তারা আপনার কাছে আসে, অনন্তর আল্লাহর কাছে ইসতিগফার করে, আর রাসূল তাদের জন্য ইসতিগফার করেন তাহলে অবশ্যই আল্লাহকে তারা পাবে তাওবা কবুলকারী, পরম দয়ালুরূপে।

এই আয়াতের আশ্বাসে শিকদার সাহেবও শান্ত হলেন আমিও শান্তি পেলাম এবং পরম নির্ভরতার সঙ্গেশান্তির রাজতোরণঅতিক্রম করে অগ্রসর হলাম।

মাযুর মানুষটিকে সবাই ইকরাম করলো, আমিও সেই ইকরামের ভাগ পেলাম। শিকদার সাহেব অঝোরে কাঁদলেন; অঝোরে, তবে নিঃশব্দে! এমন কোমল স্নিগ্ধ অথচ ঝরঝর কান্না আর কখনো দেখেছি, মনে পড়ে না। সেই কান্না আমাকেও স্পর্শ করলো। এমন কান্না আমিও বহুদিন কাঁদিনি, কাঁদতে পারিনি। কবে কোথায় যেন পড়েছি-

فيهج لي البكا بكاها

 (একটি কবুতরকে কাঁদতে দেখে আমারও কান্না পেলো, তার কান্নায় আমার কান্না উদ্বেলিত হলো। এই কান্না কান্নার কাছে চিরঋণী)

তখন বুঝতে পারিনি, আমি একভোরের প্রদীপ’-এর আলো সঙ্গে করে সালামের নাযরানা পেশ করেছি! আর মাত্র দুমাস প্রজ্বলিত থাকবে জীবন-প্রদীপ, এই জীবন্ত প্রদীপ! আফসোস, কত মানুষ তার জানাযায় শরীক হলো, আমার নছীবে হলো না।

***

মদীনার প্রতিটি দিন ছিলো আলোকিত, প্রতিটি রাত ছিলো আলোঝলমল। সূর্য তো আলো বিতরণে কৃপণতা করে না, চাঁদেরও নেই জোসনা ঢেলে দিতে কার্পণ্য, আলোর বাতায়ন কেউ যদি বন্ধ না করে। মদীনায় সূর্যের আলোতে চাঁদের জোসনায় সণাত হওয়ার সৌভাগ্য কতটুকু হয়েছে তা জানি না, তবে মসজিদে নববীতে এবার একজন আলোকিত জোসনাস্নিগ্ধ মানুষের সান্নিধ্য পেয়েছি প্রতিদিন ভোরে সন্ধ্যায়। হযরত হাফেজ্জী হুযূর রহ যেখানে বসতেন তার থেকে একটু দূরে, পশ্চিম দিকে তিনি বসতেন। যন্ত্রচালিত হুইল চেয়ার নিজেই চালিয়ে আসতেন। মানুষের চেহারাও হয় এত ঝলমলে! দিনে যেন আলো ঠিকরে বের হয়, রাতে যেন জোসনা ঝরে পড়ে! হয়ত আলোর মাটি, কিংবা মাটির আলো দিয়ে তার সৃষ্টি! শুনেছি এমন মাটিও আছে যা আলো ছড়ায়। হয়ত তিনি তেমন কোন মাটি দিয়ে তৈরী।

খোঁজ নিয়ে জানা গেলো, তিনি মদীনার বাসিন্দা এবং নবী-পরিবারের সন্তান। অতিশয়োক্তি মনে না করা হলে বলি, তাঁর সঙ্গে যখনই মুছাফাহা করেছি, মনে হয়েছে, আমার হাত কেমন যেন আলো-মাখা হয়ে গেছে।

একদিন তিনি بني  বলে ডাক দিলেন। এমন আদরমাখা ডাক আসলে এমন মুখ থেকেই আসতে পারে। দৌড়ে গেলাম, মনে হলো কিছু বলতে চাইলেন, কিন্তু বললেন না। অনেক্ষণ বসে থাকলাম যতটা সান্নিধ্য গ্রহণ করে বসা যায়। একসময় হাতটা আলতো করে মাথায় রাখলেন। মনে হলো....

জীবনে প্রথম যেদিন মদীনায় হাযিরা হলো সেদিনের সেই প্রথম অবলোকনের, প্রথম সন্নিধ্যের পুলক শিহরণের তো আসলেই কোন তুলনা নেই। এখন সেই তীব্রতা নেই, তবে সেই স্নিগ্ধতাটুকু আল্লাহর শোকর এখনো আছে। এটা আসলে হযরত হাফেজ্জী হুযূর রহ-এর ফয়য ফয়যান ছাড়া আর কিছু নয়। এই মসজিদে নববীতেই একদিন হযরতের খিদমতে আরয করেছিলাম, আমাকে এমন কোন আমল বলে দিন যাতে যিন্দেগি ভর মদীনার মুহববত কলবের মধ্যে তাযা থাকে।

তিনি বললেন, হযরত ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু দু করতেন, আল্লাহর রাস্তায় শহীদ হওয়ার জন্য এবং আল্লাহর হাবীবের শহরে মওত হাছেল হওয়ার জন্য, তুমিও সেই দু করো, আর বেশী বেশী দুরূদভেজো

***

খাদেমুল হারামাইন শরীফাইনকে আল্লাহ উত্তম জাযা দান করুন। মসজিদে নববীর মূল অংশটি তিনি সারা রাত খোলা রাখার ব্যবস্থা করেছেন। সেখানে এখন সারা রাত আশেকীনের হুজূম সমাগম। কেউ তেলাওয়াত করে, কেউ যিয়ারাতে গিয়ে সালামের নাযরানা পেশ করে। কেউ একটু পিছিয়ে এসে নামায পড়ে, তেলাওয়াত করে। রাত একটার পরে জান্নাতের বাগিচা খুলে যায়, কিছুক্ষণ সেখানে অবস্থান করো, দুরাকত নফল পড়ো, সুযোগ হলে একটু তিলাওয়াত করো, সময় সুযোগ অবশ্য হয়।

তারপর আছহাবে ছোফ্ফার মাকামে হাযির হও। তখন অবারিত সুযোগ। অনেক্ষণ বসা যায়। কখনো অনেকক্ষণ বসে থাকি, কখনো অজানা একটা ভীতি উৎকণ্ঠা তাড়া দেয়। উঠে চলে আসি।

আগে জানতাম না, এবার জানলাম, আছহাবে ছোফ্ফা থেকে হুজরা শরীফের দিকে একটু এগিয়ে গেলে পেয়ারা হাবীব ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ঠিক কদম মোবারকের নীচে বসা যায়। আমি জানতাম, অংশটি ঘেরাও করে বন্ধ রাখা হয়েছে। সালাম পেশ করার দিক থেকে বন্ধ দেখে হয়ত এমন ধারণা হয়েছে। কিন্তু বাবে জিবরীলের দিক দিয়ে খোলা।

প্রতি রাত্রে আল্লাহ মেহেরবান তাঁর পেয়ারা হাবীবের পাক কদমের সান্নিধ্যে এনেছেন। এবারের মদীনা শরীফের সফরে অনেক