রবিউস সানী ১৪২৯   ||   এপ্রিল ২০০৮

কুরআনের সবচেয়ে বড় আলিম

তাবেয়ী আবুল আহ্ওয়াস রহ. বলেন, আমি হযরত আবু মুসা আশআরী রা.-এর কাছে এলাম। সেখানে আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. ও আবু মাসউদ রা. উপস্থিত ছিলেন। তারা কুরআন মজীদ পড়ছিলেন। আমরা কিছুক্ষণ কথাবার্তা বললাম। ইতোমধ্যে আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. সেখান থেকে উঠে কোথাও গেলেন। আবু মাসউদ রা. তখন বললেন, খোদার ক্বসম, যিনি এখন উঠে গেলেন তার চেয়ে বড় কুরআনের আলিম রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আর কাউকে রেখে গেছেন বলে আমার জানা নেই। -সহীহ মুসলিম

তাবেয়ী মাসরূক বলেন, আমি সাহাবীগণকে গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করেছি। এরপর এ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি যে, তাঁদের সকলের ইলম ছজনের মধ্যে কেন্দ্রীভূত। তাঁরা হলেন- আলী রা., উমর রা., আব্দুল্লাহ রা., যায়েদ রা., আবুদ্দারদা রা. ও উবাই রা.। এরপর এ ছয় জনকে পর্যবেক্ষণ করে দেখেছি যে, তাদের ইলম কেন্দ্রীভূত রয়েছে দুজনের মধ্যে-আলী রা. ও আব্দুল্লাহ রা.।

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. এ অবস্থানে কীভাবে পৌঁছলেন? আল্লাহপ্রদত্ত যোগ্যতা এবং নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের দুআ ও সাহচর্য তাঁকে এই অবস্থানে উন্নীত করেছিল।

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন নবুওয়তপ্রাপ্ত হলেন তখন আব্দুল্লাহ রা.-এর বয়স আঠারো-উনিশ বছর। তাঁর বুদ্ধিমত্তা ও আমানতদারী ছিল লক্ষ করার মতো। সে সময়ের এক বিশেষ ঘটনায় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার প্রতি মুগ্ধ হয়েছিলেন। ঘটনাটি ছিল এই যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও আবু বকর সিদ্দীক রা. মরুভূমি দিয়ে কোথাও যাচ্ছিলেন। আব্দুল্লাহ তখন মরুর মাঠে ছাগল চড়াচ্ছিলেন। তিনি তখন উকবা ইবনে আবু মুয়াইত নামক এক লোকের ছাগল চড়াতেন। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে বললেন, তোমার কাছে কি দুধ হবে? বালক বলল, হবে, তবে আমানতদার মনে করেই এগুলো চড়ানোর দায়িত্ব আমাকে দেওয়া হয়েছে। তাঁর এ উত্তর শুনে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অত্যন্ত খুশি হয়েছিলেন। এরপর তাকে বললেন, তোমার ছাগপালে কি এমন কোনো ছাগল আছে যে এখনও সন্তানধারণের উপযুক্ত হয়নি? (অর্থাৎ যে ছাগলের দুধ দেওয়ার এখনো সময় হয়নি) বালক বলল, জ্বী হাঁ, আছে। সে তার ছাগপাল থেকে একটি ছাগল নবীর খেদমতে পেশ করল। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ছাগলটির ওলানে হাত বুলালেন। আল্লাহর কুদরতে সঙ্গে সঙ্গে তা দুধে পরিপূর্ণ হয়ে গেল। এরপর একটি পাথরের পাত্রে সেই দুধ দোহন করা হল। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পান করলেন এবং আবু বকর রা.কেও পান করতে দিলেন। এরপর ওলান আবার আগের মতো হয়ে গেল।

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর এ মুজিযা দেখে আব্দুল্লাহর মনে ঈমানের বীজ রোপিত হল। তিনি নবীজির কাছে ইসলাম গ্রহণ করলেন এবং আরজ করলেন, ইয়া রাসূ্লুল্লাহ! আমাকেও ওই কালাম শিখিয়ে দিন। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার মাথায় হাত বুলালেন এবং বললেন, ইন্নাকা গুলাইয়িমুন মুয়াল্লামুন। আল্লাহ তোমাকে রহম করুন, তুমি একজন সুসভ্য বালক। -মুসনাদে আহমাদ

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছ থেকে আব্দুল্লাহ যে সনদ লাভ করলেন তার সে গুণ নবীর সোহবত পেয়ে বিকশিত হল এবং সুবাস ছড়াল।

তাবেয়ী আব্দুর রহমান ইবনে ইয়াযিদ বলেন, আমরা হযরত হুযাইফা রা.-এর কাছে দরখাস্ত করলাম, আমাদেরকে এমন একজন ব্যক্তিত্বের সন্ধান দিন আচার-আচরণে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর সঙ্গে যার গভীর মিল রয়েছে। আমরা তাঁর সাহচর্য অবলম্বন করে উপকৃত হতে চাই। হযরত হুযাইফা রা. বললেন, আমার জানামতে আচার-ব্যবহার, চাল-চলন ইত্যাদি সবকিছুতে রাসূলুল্লাহর সঙ্গে সবচেয়ে বেশি মিল হচ্ছে ইবনে উম্মে আবদের (এটা আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.-এর উপনাম)। সাহাবীগণ জানেন, ইবনে উম্মে আবদই হলেন তাঁদের মধ্যে আল্লাহ তাআলার সর্বাধিক নৈকট্যপ্রাপ্ত।

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. ইসলামের প্রথম দিকেই ঈমান এনেছিলেন। এক বর্ণনায় এসেছে, তিনি বলেন, আমি হলাম ষষ্ঠতম মুসলিম। সে সময় ভু-পৃষ্ঠে আমরা ছাড়া আর কোনো মুসলিম ছিল না।

ইসলামের সেই প্রথম দিকের দিনগুলো ছিল বড় কঠিন। ইসলামের জন্য আব্দুল্লাহ অনেক কষ্ট সহ্য করেছেন। ইসলাম গ্রহণের পর থেকেই আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সোহবত ও খিদমতে এমনভাবে আত্মনিয়োগ করলেন যে, নতুন আগন্তুকরা মনে করত, তিনি নবী-পরিবারেরই সদস্য।

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে যেতে তাঁর অনুমতির প্রয়োজন হতো না। নবীজি তাকে বলে দিয়েছিলেন, তুমি যেকোনো সময় পর্দা উঠিয়ে আমার ঘরে প্রবেশ করতে পারবে এবং আমার একান্ত আলোচনাও শুনতে পারবে। -সহীহ মুসলিম

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সফরে গেলে তাঁর জুতা মোবারক তিনিই বহন করতেন। অজুর পানি, মিসওয়াক, বিছানা ইত্যাদি বহনের খিদমতও তিনিই আঞ্জাম দিতেন।

এই ঐকান্তিক খিদমত ও সাহচর্যের ফল কী হয়েছিল এবং ইলম,আমল ও আল্লাহ তাআলার নৈকট্য অর্জনে তিনি কতদূর অগ্রসর হয়েছিলেন সে কথাই এখন একটু একটু করে বলছি।

হযরত সাদ ইবনে আবি ওয়াক্কাস রা. বলেন, একবার আমরা ছয়জন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সঙ্গে এক মজলিসে ছিলাম। এমন সময় কিছু কাফির তাঁর কাছে এল এবং অহঙ্কার করে বলল, এদের এখান থেকে তাড়িয়ে দিন, এরা যেন আমাদের উপর কোনো কথা বলতে না পারে। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম চিন্তা করছিলেন। ইতোমধ্যে আয়াত অবতীর্ণ হল। অর্থাৎ সূরা আনআম-এর ৫২ ও ৫৩ নম্বর আয়াত, যার তরজমা হচ্ছে-আপনি ওদেরকে দূরে সরিয়ে দিবেন না যারা তাদের পালনকর্তাকে ডাকে সকালে ও সন্ধ্যায়...।

সে ছয় সৌভাগ্যবানের অন্যতম হলেন হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.। -সহীহ মুসলিম

উপরোক্ত আয়াতের মাধ্যমে এদের প্রতি বিশেষ মনোযোগ দানের যেন আসমানী নির্দেশ অবতীর্ণ হল। জগতের সর্বশ্রেষ্ঠ মুআল্লিমের সযত্নদৃষ্টি যখন নিবদ্ধ হল তখন মাটির মানুষ সোনার মানুষে পরিণত হলেন। জ্ঞান ও প্রজ্ঞা, তাকওয়া ও খোদাভীতিতে তাদের কোনো তুলনা কোথাও রইল না।

কুরআন মাজীদের সঙ্গে হযরত আব্দুল্লাহ মাসউদ রা.-এর ছিল হৃদয়ের সম্পর্ক। সবাই যখন নিদ্রায় অভিভূত হয়ে যেত তখন তার যবান থেকে মৌমাছির গুঞ্জনের মতো কুরআন তেলাওয়াতের ধ্বনি শোনা যেত।

এক রাতে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর দুই প্রিয় সাহাবী আবু বকর রা. ও উমর রা.কে সঙ্গে নিয়ে বের হয়েছেন। মসজিদের এক প্রান্ত থেকে স্পষ্ট ও বিশুদ্ধ স্বরে কুরআন তেলাওয়াতের আওয়াজ শোনা যাচ্ছিল। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বেশ কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে তেলাওয়াত শুনলেন। এরপর বললেন, যে কুরআনকে সজীবরূপে তেলাওয়াত করতে চায়, যেভাবে তা অবতীর্ণ হয়েছে তাহলে যেন ইবনে উম্মে আবদের মতো তেলাওয়াত করে।

এদিকে তিলাওয়াতকারী নামায শেষে দুআয় মগ্ন হয়েছেন। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অনুচ্চস্বরে বললেন, প্রার্থনা কর তোমাকে দান করা হবে। সৌভাগ্যবান দুআকারী সেই শুভ মুহূর্তে না জানি কত কিছু চেয়ে নিয়েছেন। তবে ইতিহাসের পাতায় যতটুকু সংরক্ষিত আছে তারও কোনো তুলনা নেই। তিনি সে দুআয় বলেছেন, ইয়া আল্লাহ! আমি আপনার কাছে এমন ঈমান প্রার্থনা করছি, যা কখনো বিনষ্ট হবে না, এমন নিয়ামত প্রার্থনা করছি, যা কখনো নিঃশেষ হবে না, আর প্রার্থনা করছি আপনার নবীর সাহচর্য চিরশান্তির সর্বোচ্চ জান্নাতে।

ওমর রা. বলেন আমি ভাবলাম, এই সৌভাগ্যের সুসংবাদ আমি তাকে দিব। সকালে যখন তাঁর কাছে গেলাম, দেখি, হযরত আবু বকর আগেই তাকে এ সংবাদ জানিয়ে এসেছেন।

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. বলেন, আমরা যখন দশ আয়াত শিক্ষা গ্রহণ করতাম তখন এর মর্ম জানার আগে এবং সে অনুযায়ী আমল করার আগে সামনে অগ্রসর হতাম না।

এই জ্ঞান ও প্রজ্ঞা এবং তাকওয়া ও খোদাভীতির কারণে হযরত উমর রা. তাকে অত্যন্ত সম্মান করতেন এবং মুহাববত করতেন। একদিনের ঘটনা। যায়েদ ইবনে ওয়াহাব বলেন, আমি ওমর রা.-এর নিকট ছিলাম। এমন সময় আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. উপস্থিত হলেন। ছোটখাটো মানুষ ছিলেন, হযরত উমরের চার পাশে বসে থাকা লোকদের কারণে তাকে প্রায় দেখাই যাচ্ছিল না। কিন্তু তার দিকে নজর পড়ামাত্র উমর রা.-এর মুখমন্ডল উজ্জ্বল হাসিতে উদ্ভাসিত হয়ে গেল। কিছুক্ষণ তাঁরা বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করলেন। তার প্রস্থানের সময় যতক্ষণ তাঁকে দেখা যায় উমর রা. একদৃষ্টিতে সেদিকেই তাকিয়ে রইলেন। এরপর বললেন, কুনাইফুন মুলিআ ইলমা। অর্থাৎ জ্ঞানে পূর্ণ এক মহা জ্ঞান-পাত্র!

আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. ৩২ হিজরীতে মদীনা মুনাওয়ারায় ইন্তেকাল করেন। কেউ কেউ ৩৩ হিজরীর কথাও বলেছেন। সে সময় তাঁর বয়স ছিল বাষট্টি কিংবা তেষট্টি বছর।

জীবনের শেষ দিকে হযরত উসমান রা.তাঁকে মদীনায় ডেকে পাঠিয়েছিলেন। কুফার অধিবাসীরা বলল, আপনি এখানেই থাকুন। আমরা আপনাকে সব ধরনের সহযোগিতা প্রদান করব। আব্দুল্লাহ বললেন, তাঁর আদেশ পালন করা আমার জন্য অপরিহার্য। আর অচিরেই কিছু অনভিপ্রেত বিষয় এবং ফিৎনা সৃষ্টি হবে যার সূচনাকারী আমি হতে চাই না। একথা বলে তিনি মদীনায় ফিরে গিয়েছিলেন। 

 

 

advertisement