রবিউস সানি ১৪৩৬   ||   ফেব্রুয়ারি ২০১৫

নেফাসের সময়সীমা : একটি প্রশ্ন ও উত্তর

মাওলানা মুহাম্মাদ আব্দুল মালেক

 

 

 

 প্রশ্ন: জনাব, সমত্মান প্রসবের পর মহিলাদের যে ওযর দেখা দেয়, (যাকে নেফাস বলা হয়) আমি যতটুকু জানি আলেমদের মতে তার সর্বোচ্চ সময়সীমা চল্লিশ দিন। আমার জানা মতে অধিকাংশ আলেমের মাযহাব এটাই যে, চল্লিশ দিনের আগে রক্ত বন্ধ হয়ে গেলে পবিত্র হয়ে যাবে, এরপর স্বাভাবিকভাবে নামায-রোযা আদায় করতে পারবে। আর চল্লিশ দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও রক্ত বন্ধ না হলে অতিরিক্ত দিনগুলোর রক্ত ইস্তেহাযার রক্ত বলে গণ্য হবে।  এ ক্ষেত্রে সে নামায আদায় করা শুরু করে দিবে।

আমার প্রশ্ন হল, এই মাসআলার দলীল কী? হাদীসে তো চল্লিশ দিন পর্যন্ত ‘বসে থাকার’ কথা এসেছে। চল্লিশ দিনের পূর্বে রক্ত বন্ধ হলে পবিত্র হয়ে যাবে- এমন কথা আমি কোনো সহীহ হাদীসে পাইনি। হাঁ, কিছু যয়ীফ রেওয়ায়েতে إلا إلا أن ترى الطهر قبل ذلك   (তবে যদি চল্লিশ দিনের পূর্বেই পবিত্রতা দেখতে পায়) বাক্যটি এসেছে। কিন্তু সহীহ হাদীসে আমি এ কথা পাইনি।

এ কথা বলা কঠিন যে, ইমামগণের সবাই এ হাদীসের এই উদ্দেশ্যই বুঝেছেন যে, চল্লিশ দিন হল সর্বোচ্চ সময়সীমা, (নির্দিষ্ট সময়সীমা নয়) কেননা ইবনুল জারুদের ‘আল মুন্তাকায়’ সাহাবী হযরত উসমান ইবনে আবিল আস রা.-এর আমল বর্ণিত হয়েছে যে, তিনি চল্লিশ দিন পূর্ণ হওয়ার আগে স্ত্রী সহবাস করতেন না। বোঝা গেল, হাদীসের এই অর্থ অর্থাৎ চল্লিশ দিন নির্দিষ্ট সময়সীমা না হয়ে সর্বোচ্চ সময়সীমা হওয়া- এটি সর্বসম্মত মত নয়। তাহলে এই হুকুমের সূত্র কী? জানিয়ে বাধিত করবেন। আল্লাহ আপনাকে উত্তম প্রতিদান দান করুন।

-আব্দুল্লাহ, মিরপুর, ঢাকা

 

উত্তর: আপনাকে মোবারকবাদ, মাশাআল্লাহ একটি মাসআলা বোঝার জন্য আপনি অনেক মেহনত করেছেন।   إلا أن ترى الطهر قبل ذلك স্পষ্টভাবে না পেয়ে আপনি চিন্তিত হয়েছেন। বস্তুত إلا أن ترى الطهر قبل ذلك অংশটি যে রেওয়ায়েতগুলোতে স্পষ্টভাবে উল্লেখ হয়নি ঐ রেওয়ায়েতগুলোতেও এ অংশটি ধর্তব্য। হাদীসের শব্দ- كانت النفساء تجلس على عهد رسول الله صلى الله عليه وسلم أربعين يوما (রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের যুগে নেফাসগ্রস্ত মহিলাগণ চল্লিশ দিন পর্যন্ত ‘বসে থাকতেন’।) এখানে ‘বসে থাকা’র অর্থ হল, ‘অপেক্ষা করা’। অর্থাৎ তারা এই অপেক্ষায় থাকবে যে, কখন রক্ত বন্ধ হয়ে যায়, যেন নামায শুরু করা যায়। রক্ত বন্ধ হলে (গোসল করে) নামায শুরু করে দিবে। তবে এই অপেক্ষার সময়সীমা বলে দেওয়া হয়েছে চল্লিশ দিন। অর্থাৎ চল্লিশ দিনের অধিক অপেক্ষা করবে না। যদি তারপরও রক্ত বন্ধ না হয় তবুও (গোসল করে) নামায শুরু করে দিবে।

উল্লেখিত হুকুম বর্ণনা করার সময় অনেক সাহাবা ও তাবেঈগণ تجلس শব্দের স্থানে تنتظر বা تربص শব্দ ব্যবহার করেছেন। যার অর্থ ‘অপেক্ষা করবে’। এটা (‘অপেক্ষা করবে’) মূলত ঐ হাদীসেরই ব্যাখ্যা যাতে ‘বসে থাকবে’ শব্দ এসেছে। উদাহরণত, হযরত উমর ইবনুল খাত্তাব রাযিআল্লাহু আনহু, আব্দুল্লাহ ইবনে আববাস রাযিআল্লাহু আনহু, আনাস রাযিআল্লাহু আনহু প্রমুখ সাহাবায়ে কেরাম এবং হাসান বসরী রাহিমাহুল্লাহ, আতা ইবনে আবি রাবাহ রাহিমাহুল্লাহ, ও যাহহাক ইবনে মুযাহিম রাহিমাহুল্লাহ প্রমুখ তাবেঈনদের আছার ও উক্তিসমূহ হাদীসের কিতাবগুলোতে تنتظر বা تربص শব্দে বর্ণিত হয়েছে। দেখুন: মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক, ১/৩১২-৩১৩ (১১৯৭-১২০০); মুসান্নাফে ইবনে আবি শাইবা, ৯/৪১৭ (১৭৭৪১); আল আওসাত, ইবনুল মুনযির, ২/৩৭৬-৩৭৭ (৮২৪-৮২৮);  মুসনাদে দারেমী ৫/১৯১ (১০৪৪, ১০৪৫) (ফতহুল মান্নানসহ)

দ্বিতীয়ত আল মুন্তাকা ইবনুল জারুদের উদ্ধৃতিতে হযরত উসমান ইবনে আবিল আস রা.-এর যে রেওয়ায়েতের কথা আপনি বলেছেন তাতে যদিও চল্লিশ দিনের পূর্বে রক্ত বন্ধ হওয়ার হুকুম উলেস্নখ নেই কিন্তু মুসনাদে দারেমী ৫/১৮৫ (১০৩৭) ও ইবনুল মুনযির রচিত আল আওসাতে ২/৩৭৬ (৮২৫) হযরত উসমান ইবনে আবিল আস রা.- এরই একটি উক্তি বর্ণিত হয়েছে, যাতে এ  বিষয়টি স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

মুসনাদে দারেমীর রেওয়ায়েতটির আরবী পাঠ এই-

 أخبرنا جعفر بن عون أنا إسماعيل بن مسلم، عن الحسن عن عثمان بن أبي العاص، قال: وقت النفساء أربعين يوما، فإن طهرت وإلا فلا تجاوزه حتى تصلي.

 ‘‘উসমান ইবনে আবুল আস রাযিআল্লাহু আনহু বলেন, নেফাসগ্রস্ত মহিলাদের সময়সীমা চল্লিশ দিন। তবে যদি এর আগেই পবিত্র হয়ে যায়, (তাহলে  পবিত্রতার বিধান শুরু হয়ে যাবে।) অন্যথায় চল্লিশ দিন পর নামায শুরু করতে বিলম্ব করবে না।’’

এই রেওয়ায়েতের বর্ণনাকারীগণ সবাই নির্ভরযোগ্য।

ইবনুল মুনযিরের রেওয়ায়েতের আরবী পাঠ এই-

حدثنا يحيى (ابن محمد) ، ثنا أحمد بن يونس، ثنا زائدة، عن هشام عن الحسن عثمان ابن أبي العاص قال: تمكث النفساء أربعين ليلة إلا أن ترى الطهر قبل ذلك.

‘‘উসমান ইবনে আবুল আস রাযিআল্লাহু আনহু বলেন, নেফাসগ্রস্ত মহিলাগণ চল্লিশ রাত অবস্থান করবে। তবে যদি এর আগে পবিত্রতা দেখে।’’

এর বর্ণনাকারীগণও সবাই  নির্ভরযোগ্য।

অতএব জুমহুর ফুকাহায়ে কেরামের যে মাযহাব আপনি প্রশ্নে উল্লেখ করেছেন তা দলীলের দৃষ্টিকোণ থেকে যথেষ্ট শক্তিশালী।

 

 

 

 

 

advertisement