মুহাররম ১৪৩৫   ||   নভেম্বর ২০১৩

একই দিনে ঈদের বিষয় দায়িত্বশীলদের উপর ছাড়ুন-- ৪

মাওলানা মুহাম্মাদ আব্দুল মালেক

মুসলমানদের মাঝে ঈমান ইসলামী ভ্রাতৃত্বের ঐক্য সৃষ্টির চেষ্টা করুন

 (পূর্ব প্রকাশিতের পর)

জাহিরুর রিওয়ায়াহপ্রসঙ্গে আরো কিছু কথা

আলহামদুলিল্লাহ বিষয়ে যথেষ্ট আলোচনা হয়েছে। তবে ইলমুল ফিকহের প্রাথমিক স্তরের তালিবে ইলম ভাইদের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, আমরা শুনেছি, ‘মুতূনশিরোনামে ফিকহের যে মুখতাসার কিতাবসমূহ আছে তাজাহিরুর রিওয়ায়াহ’-এর মাসাইলের জন্য সংকলিত। শ্রেণির একটি গুরুত্বপূর্ণ মতনকানযুদ দাকাইক’, যা দরসে নেযামীর এক বিশেষ কিতাব। তাতে আছে-

لا عبرة لاختلاف المطالع

 (উদয়স্থলের ভিন্নতা ধর্তব্য নয়।)

থেকে তো বোঝা যায়, এটিজাহিরুর রিওয়ায়াহ মাসআলা। তালিবানে ইলমের খিদমতে আরজ এই যে, প্রথমত, কথা সঠিক নয় যে, ‘মুতূনশ্রেণির গ্রন্থসমূহে উল্লেখিত সকল মাসআলাজাহিরুর রিওয়ায়াহ’-এর। সকল কিতাবে অনেক মাসআলাজাহিরুর রিওয়ায়াহ’-এর বাইরেরও আছে। দ্বিতীয় কথা এই যে, ‘মুতূন’-এর প্রাচীন গ্রন্থসমূহ, যা সালাফের মাঝেমুতালাক্কা বিল কবূল’ (ব্যাপকভাবে সমাদৃত) ছিল তাতে মাসআলা নেই। মুখতাসারুত তহাবী, মুখতাসারুল হাকিমিশ শহীদ, মুখতাসারুল কারখী, মুখতাসারুল কুদূরী, তুহফাতুল ফুকাহা, বিদায়াতুল মুবতাদী- সব তো মুতূন-শ্রেণির কিতাব। এসব কিতাবে আমাদের জানা মতে মাসআলা নেই।

মুতাআখখিরীনের নিকটে প্রসিদ্ধমুতূন’-গ্রন্থাবলির অন্যতম হচ্ছেআলবিকায়া এতে মাসআলা নেই। মাওসিলীরআলমুখতারকিতাবে যদিওবা খানিয়ার অনুসরণে মাসআলা লেখা হয়েছে, কিন্তু মাওসিলী নিজেইআলমুখতার’-এর ভাষ্যগ্রন্থে বিপরীত সিদ্ধান্তকেই প্রাধান্য দিয়েছেন। অর্থাৎ দূর-দূরান্তের শহর-নগরের ক্ষেত্রে এক এলাকার চাঁদ দেখা অন্য এলাকার জন্য অবশ্য-অনুসরণীয় নয়।

একমতন’-গ্রন্থ সাআতীরমাজমাউল বাহরাইন ওয়া মুলতাকান নাইয়িরাইন এতে তিনিমুখতাসারুল কুদূরীমানযূমাতুন নাসাফী মাসায়েল একত্র করেছেন। এতে তিনি উপরোক্ত মাসআলা এনেছেন د (দাল) বর্ণের নির্দেশিকার সাথে। د (দাল) বর্ণের অর্থ, এটিযাইদবা অতিরিক্ত মাসআলা। অর্থাৎ যে দুই কিতাব থেকে তিনি মাসআলা সংকলন করেছেন তাতে মাসআলা নেই।

সারকথা এই যে, অধিকাংশ মতন, বিশেষত মুতাকাদ্দিমীনের মতনসমূহে মাসআলার (উদয়স্থলের ভিন্নতা ধর্তব্য নয়) উল্লেখ নেই।মাজমাউল বাহরাইন’, ‘কানয’, ‘মুলতাকাল আবহুরসহ দুচার মতনে যদিওবা মাসআলা আছে, কিন্তু এগুলোর লেখকগণ সকলেই খুলাসা-খানিয়ার পরের এবং এগুলোর অধিকাংশ গবেষক ভাষ্যকার অন্য সিদ্ধান্ত (দূর-দূরান্তের শহর-নগরে এক এলাকার চাঁদ দেখা অন্য এলাকার জন্য লাযিম নয়)-কে প্রাধান্য দিয়েছেন।

জাহিরুর রিওয়ায়াহহওয়াই কি অগ্রগণ্যতার একমাত্র কারণ?

একথাও স্মরণ রাখা দরকার যে, কোনো মাসআলা জাহির রিওয়ায়া হওয়াই অগ্রগণ্যতার একমাত্র কারণ নয়। এটা খুবই সম্ভব যে, ‘আসহাবুত তারজীহ’ (ইখতিলাফী মাসাআলাসমূহে রাজিহ-মারজূহ নির্ধারণকারী ফকীহবৃন্দ) দলীলের শক্তি বা অন্য কোনো বিবেচনায় অন্য কওলকে (বক্তব্য) তারজীহ দিবেন। ফলে সেক্ষেত্রে অগ্রগণ্য কওল অনুসারেই আমল হবে, ‘জাহিরুর রিওয়ায়াহঅনুসারে নয়। যেমনটা রাসমুল মুফতী উসূলুল ইফতার কিতাবসমূহে পরিষ্কারভাবে বলা হয়েছে। আর ইবরাহীম হালাবীর বাক্যে মূলনীতি তো খুই প্রসিদ্ধ-

ولا يعدل عن الدراية إذا وافقتها رواية

সুতরাংউদয়স্থলের ভিন্নতা ধর্তব্য না হওয়াযদি বাস্তবেজাহিরুর রিওয়ায়া হত এরপরও যেহেতু মাযহাবের বড় বড় ফকীহগণের কেউ হয়তো তা উল্লেখই করেননি, শুধু বিপরীত কওলটিই উল্লেখ করেছেন কিংবা উল্লেখ করলেও বিপরীত কওলটিকেসহীহবাআশবাহ’ (অর্থাৎ দলীলের বিচারে অধিক উপযুক্ত এবং শরীয়তের নীতিমালার সাথে অধিক সামঞ্জস্যপূর্ণ) বলেছেন। সুতরাং অনুসারে ফতোয়া দেওয়া এর উপর আমল করায় আপত্তির কিছু থাকতে পারে না। কারণ বিষয়টি তো ইজতিহাদী ইখতিলাফী।

তাহলে বাস্তবতা যখন এই যে, একেজাহিরুর রিওয়ায়াহবলাই ভুল, তখন এর বিপরীত কওল গ্রহণ করায় তো আপত্তির প্রশ্নই আসে না।

তলাবায়ে কেরাম বিষয়টিও লক্ষ্য করুন যে, যখন এই প্রসিদ্ধ কওলকেজাহিরুর রিওয়ায়াহবলাতাসামূহ’ (ভ্রম) তখন পরের যে লেখকগণ এই কওলকে শুধু কারণে প্রাধান্য দিয়েছেন যে, তাজাহিরুর রিওয়ায়াহতাদের এইতারজীহ কওলের শক্তি বৃদ্ধি করে না।আলবাহরুর রাইকমাজমাউল আনহুরসহ বিভিন্ন ফিকহের কিতাবে কওলকে কারণেই তারজীহ দেওয়া হয়েছে যে, এটিজাহিরুর রিওয়ায়াহসুতরাং তারজীহ বিশেষ কোনো শক্তি রাখে না।

সামনে অগ্রসর হওয়ার আগে দুটি জরুরি নোট :

এক. অধম যা লিখেছি যে, আলোচিত বিষয়ে মুতাআখখিরীনের নিকটে যে সিদ্ধান্ত প্রসিদ্ধ, তাজাহিরুর রিওয়ায়াহনয়, এটি আমার সাধ্য অনুযায়ী তাহকীক-অনুসন্ধানের পর লিখেছি। এরপরও যদি এক্ষেত্রে আমার কোনো ভুল হয়ে থাকে তাহলে তলাবায়ে কেরাম ফিকহ-ফতোয়ার সাথে মশগুল উলামায়ে কেরামের কাছে বিনীত নিবেদন, তাঁরা অনুগ্রহ করে আমাকে তাম্বীহ করবেন, আমি তাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞ থাকব।*

দুই. প্রসিদ্ধ কওলটি সম্পর্কে উপরের আলোচনায় শুধু এটুকু বলা হয়েছে যে, একে হানাফী মাযহাবেরজাহিরুর রিওয়ায়াহসাব্যস্ত করা ভুল। এর অর্থ এই নয় যে, হানাফী মাযহাবের সাথে কওলের কোনো সম্পর্কই নেই। কারণ একাধিক হানাফী ফকীহর কাছে কওল রাজিহ-অগ্রগণ্য এবং তাঁরা একেমুফতা বিহী কওল’ (যে কওল অনুসারে ফতোয়া দেওয়া হয়েছে বা ফতোয়া দেওয়া উচিত) সাব্যস্ত করেছেন। এরপর অন্যান্য ফিকহী মাযহাবের অনেক ফকীহরও মাসলাক এটিই। এবং কওলেরও শরয়ী দলীল আছে। কারণে কোনো দেশের দায়িত্বশীলগণ যদি এই কওল অনুযায়ী ফয়সালা করেন তাহলে এর উপরও আপত্তি করা ঠিক নয়। কারণ যেমনটা আগে বলা হয়েছে যে, মাসআলা ইজতিহাদী ইখতিলাফী।

আপত্তি তো সকল লোকদের উপর, যারা এই প্রসিদ্ধ কওলের আড়ালে (যাকে ভুলবশতজাহিরুর রিওয়ায়াহবলে দেওয়া হয়েছে) মুসলিম উম্মাহর অধিকাংশের ব্যাপারে কটূক্তি করে, যারা নিজেদের আলিম-উলামা দায়িত্বশীলদের ফয়সালা অনুসারে নিজ নিজ এলাকার চাঁদ দেখা অনুসারে আমল করেন। অথচ তাদের আমল শরয়ী দলিলভিত্তিক এবং তরীকার মুতাবিক যা সব সময় মুতাওয়ারাছ চলে আসছে। আর যা হানাফী মাযহাবের অতি নির্ভরযোগ্য কওল, যে অনুযায়ী বহু আগে থেকেই বড় বড় ফকীহ ফতোয়া দিয়ে আসছেন। যদিও কোনো কোনো কিতাবের বর্ণনাভঙ্গি থেকে কিছু মানুষের বিভ্রান্তি হয়েছে যে, কওল হানাফী ফকীহগণের মাঝে শুধু যায়লায়ীর, বা কাসানী যায়লায়ীর কওল (সিদ্ধান্ত)!

এখন আমরা দেখব, কি বাস্তবেই শুধু দুই মনীষীর সিদ্ধান্ত, না তাঁরা ছাড়াও অনেক বড় বড় হানাফী ফকীহের সিদ্ধান্ত। বিশেষভাবে মুতাকাদ্দিমীনের (পূর্ববর্তীদের) কাছে তো কওলই বেশি প্রসিদ্ধ ছিল। সংক্ষিপ্ত করার ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও আলোচনা লম্বা হতে চলেছে, আমি পাঠকবৃন্দের কাছে ধৈর্য ধারণের অনুরোধ করছি।

এখন সংক্ষেপে বড় বড় ফকীহর কথা শুনুন, যাঁদের সিদ্ধান্ত - ছিল যে, দূর-দূরান্তের শহর-নগরের কোনো এক অঞ্চলের চাঁদ দেখা অন্য অঞ্চলের জন্য অবশ্য-অনুসরণীয় নয়।

. ইমাম আবু আবদিল্লাহ আলফকীহুল জুরজানী (৩৯৮ হি.)

ইমাম কুদূরী রাহ.-এর উস্তায ইমাম আবু বকর আলজাসসাস রাহ.-এর শাগরিদ। আলজামিউল কাবীর-এর ভাষ্যকার।ইখতিলাফুল মাতালি’ (উদয়স্থলের ভিন্নতার) ক্ষেত্রে তাঁর সিদ্ধান্ত - ছিল যে, দূর-দূরান্তের শহর-নগরের ক্ষেত্রে এক অঞ্চলের চাঁদ দেখা অন্য অঞ্চলের জন্য অবশ্য-অনুসরণীয় নয়।

ইমাম আনওয়ার শাহ কাশ্মীরী রাহ. ‘‘আলআরফুশ শাযী’’-তে (/১৪৯ জামে তিরমিযীর হাশিয়ায়) আল্লামা মুহাম্মাদ ইউসুফ বানূরী রাহ. ‘‘মাআরিফুস সুনানে’’ (/৩৩৭) আরবের মশহূর জনপ্রিয় আলিম আল্লামা আবদুল্লাহ বিন মুহাম্মাদ বিন হুমাইদ ‘‘তিবয়ানুল আদিল্লাহ ফী ইছবাতিল আহিল্লা’’ কিতাবে (পৃষ্ঠা : ১৫) আলজুরজানীর** মাসলাকই (সিদ্ধান্তই) উল্লেখ করেছেন এবং বলেছেন, বিষয়ে যায়লায়ীর মাসলাক যা জুরজানীর মাসলাকও তা-ই।

. আবুল হুসাইন আলকুদূরী (৪২৮ হি.)

গত সংখ্যায় তাঁর কিতাবশরহু মুখতাসারিল কারখীএবংআলমুহীতুল বুরহানী বরাতে তাঁর মাসলাক লেখা হয়েছে। তিনি পরিষ্কার বলেছেন, দূরবর্তী অঞ্চলসমূহের ক্ষেত্রে এক অঞ্চলের চাঁদ দেখা অন্য অঞ্চলের জন্যলাযিমবা অবশ্য-অনুসরণীয় নয়।

. মুহাম্মাদ ইবনে ইবরাহীম আবু বকর আলহাসীরী (৫০০ হি.)

ইলমুল ফিকহে বিশেষভাবে শামসুল আইম্মা সারাখসী রাহ.-এর এবং ইলমে হাদীসে অনেক মুহাদ্দিসের শাগরিদ। বুখারা নগরে ৫০০ হিজরীতে ইন্তিকাল।আলজাওয়াহিরুল মুযিয়্যা (/) ‘‘আলফাওয়াইদুল বাহিয়্যা’’য় তাঁরতরজমা’ (পরিচিতি মূলক আলোচনা) আছে। ফিকহ-ফতোয়া বিষয়ে তাঁর কিতাব ‘‘আলহাভী’’ খুব নির্ভরযোগ্য সবিশেষ গুরুত্বপূর্ণ বরাতগ্রন্থ। এবংহাভিয যাহিদীআলহাভিল কুদসী আগের। (কাশফুয যুনূন)

কিতাবের একাধিক মাখতূতা মধ্যপ্রাচ্য পাশ্চাত্যের বিভিন্ন কুতুবখানায় সংরক্ষিত আছে। মুহূর্তে আমি তাঁর বক্তব্য হিদায়া-গ্রন্থকার ইমাম বুরহানুদ্দীন আলমারগীনানী রাহ.-এর কিতাবআততাজনীসথেকে নকল করছি। ছাহিবে হেদায়া লেখেন-

وفي الحاوي : أهل بلدة رأوا الهلال يوم الثلثاء، وأهل بلدة أخرى يوم الأربعاء يحكم لكل بلدة بما رأوا، ولا ينظر إلى أهل بلدة أخرى ... .

অর্থ : ‘আলহাভীতে আছে, যদি কোনো শহরবাসী মঙ্গলবার চাঁদ দেখে আর অন্য শহরের অধিবাসীগণ বুধবার তাহলে প্রত্যেক শহরবাসীর জন্য তাদের নিজেদের চাঁদ দেখা অনুসারে ফয়সালা করা হবে। অন্য শহরের দিকে দেখা হবে না। (আততাজনীস ওয়াল মাযীদ /৪২৩)

ইমাম আবু বকর হাসীরী রাহ.-এর বক্তব্য বর্ণনা করে হেদায়া-গ্রন্থকার যে মন্তব্য লিখেছেন তার সারমর্ম হচ্ছে, বিধান দূর-দূরান্তের শহর-নগরের ক্ষেত্রে। কাছাকাছি অঞ্চলসমূহে এক এলাকার চাঁদ দেখা অন্য এলাকায় শরয়ী পদ্ধতিতে প্রমাণিত হলে দায়িত্বশীলগণ সে অনুযায়ী ফয়সালা করবেন।

. হুসামুদ্দীন আসসদরুশ শহীদ (৫৩৬ হি.)

‘‘আলমুহীতুল বুরহানী’’ লেখকের সম্মানিত চাচা, হেদায়া-লেখক আল্লামা কাযীখান রাহ.-এর খাস উস্তাদ, ফিকহ-ফতোয়ার প্রসিদ্ধ ইমাম। তাঁর বক্তব্য তাঁর কিতাব ‘‘আলফাতাওয়াল কুবরামাখতূতা’ (হস্তলিখিত পান্ডুলিপি) থেকে গত সংখ্যায় পেশ করা হয়েছে।

. ফকীহ আবদুর রশীদ আলওয়ালওয়ালিজী (মৃত্যু ৫৪০ হি.-এর পরে)

তাঁর কিতাবআলফাতাওয়াল ওয়ালওয়ালিজিয়্যাহথেকে উদ্ধৃত বক্তব্য আপনারা গত সংখ্যায় পাঠ করেছেন।

. রুকনুদ্দীন আবুল ফযল আবদুর রহমান ইবনে মুহাম্মাদ আলকিরমানী (৫৪৩ হি.)

গত সংখ্যায়খুলাসাতুল ফাতাওয়া বর্ণনায় পাঠক বাক্য পাঠ করেছেন-

وفي التجريد : يعتبر اختلاف المطالع

অর্থাৎতাজরীদ’-গ্রন্থে আছে, উদয়স্থলের ভিন্নতা ধর্তব্য। (খুলাসাতুল ফাতাওয়া) এর অর্থ, তাজরীদ-লেখকের কাছে দূর-দূরান্তের শহর-নগরের ক্ষেত্রে এক এলাকার চাঁদ দেখা অন্য এলাকার জন্য লাযিম নয়।

ফিকহে হানাফীতে যদিওতাজরীদনামে একাধিক কিতাব আছে, তবে বেশি প্রসিদ্ধ দুটি কিতাব : এক. ইমাম আবুল হুসাইন আলকুদূরী রাহ.-এর ‘‘আততাজরীদ’’, যা কয়েক বছর আগে ১২ খন্ডে মুদ্রিত প্রকাশিত হয়েছে। যেহেতু ‘‘তাজরীদ’’ বেশি প্রসিদ্ধ এবং এর লেখক ইমাম কুদূরী রাহ. খুলাসা-লেখকের আগের আর বাস্তবেও ইমাম কুদূরীর মাসলাকও সেটিই কারণে কারো ধারণা হতে পারে যে, উপরের বরাতে ইমাম কুদূরীর তাজরীদই উদ্দেশ্য। কিন্তু ধারণা ঠিক নয়। প্রথমত কারণে যে, কুদূরী রাহ.-এর ‘‘তাজরীদে’’ মুদ্রিত নুসখায় আমাদের জানামতে মাসআলা নেই, দ্বিতীয়ত ‘‘খুলাসায়’’ এমন অনেক মাসআলায় ‘‘তাজরীদে’’ বরাত দেয়া হয়েছে ইবারত আনা হয়েছে যা নিঃসন্দেহে কুদূরীর তাজরীদে নেই। তৃতীয়ত কুদূরীর কিতাবের বিষয়বস্ত্ত হচ্ছে, সকল মাসআলার দালীলিক তুলনামূলক বিশ্লেষণ, যেগুলোতে ইমাম আবু হানীফা রাহ. ইমাম শাফেয়ী রাহ.-এর মাঝে ইখতিলাফ হয়েছে। অথচউদয়স্থলের ভিন্নতাশীর্ষক মাসআলা (অন্তত ইমাম কুদূরীর মতে) শ্রেণির নয়। ইমাম কুদূরী রাহ. মাসআলার যে সমাধান ‘‘শরহু মুখতাসারিল কারখী’’ তে উল্লেখ করেছেন ফিকহে শাফেয়ীর সমাধানও তাই। কারণে তাঁর নিকটে মাসআলা তাঁর ‘‘তাজরীদ’’ গ্রন্থের বিষয়বস্ত্তর সাথে সরাসরি যুক্ত নয়।

‘‘তাজরীদ’’ নামে দ্বিতীয় মশহূর কিতাব ইমাম রুকনুদ্দীন আবুল ফযল আলকিরমানী রাহ. (৪৫৭-৫৪৩ হি.)-এর, যা ফিকহে হানাফীর বুনিয়াদী কিতাবসমূহের অন্যতম।তাজরীদুল কুদূরীথেকে আলাদা করার জন্য কখনো কখনো একেতাজরীদুর রুকনীনামেও উল্লেখ করা হয়।

আফসোস, অতি গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থ, যা এখনো মুদ্রিত হয়নি, তবে আনন্দের কথা এই যে, মক্কা মুকাররমায় উম্মুল কুরা ইউনিভার্সিটিরকুল্লিয়াতুশ শারীয়ায় (ফিকহ বিভাগ) কিতাবের তাহকীকের (পান্ডুলিপি সম্পাদনার) কাজ শুরু হয়েছে এবং ১৪৩২-১৪৩৩ হিজরীতে আবদুল্লাহ বিন সুলায়মান বিন ওয়ায়িল আত-তুয়াইজিরী কিতাবের শুরু থেকেবাবুয যিহারপর্যন্ত তাহকীক করে ফিকহ বিষয়ে ডক্টরেট এর অভিসন্দর্ভ প্রস্ত্তত করেছেন।

‘‘খুলাসাতুল ফাতাওয়া’’য় যে তাজরীদের বরাত বারবার আসে তা এই ‘‘আততাজরীদুর রুকনী’’*** কিতাবের উপর জামেয়া উম্মুল কুরায় যে কাজ হয়েছে সে সম্পর্কে আমাকে অবগত করেছেন আমাদের ফিকহ-বিভাগের চতুর্থ বর্ষে অধ্যয়নরত তালিবে ইলম মৌলভী ফয়যুল্লাহ। এরপর আমার অনুরোধে শায়খ ত্বহা হোসাইন কিতাবের সম্পাদিত নুসখা থেকে সংশ্লিষ্ট পৃষ্ঠাগুলো আমার জন্য পাঠিয়েছেন। এতে মাসআলার উপর যে আলোচনা এসেছে তা নিম্নরূপ :

ولو صام أهل مصر ثلاثين يوما للرؤية، وصام أهل بلد تسعة وعشرين يوما للرؤية فعلى هؤلاء قضاء يوم واحد، وهذا إذا كان بين البلدين تقارب لا تختلف المطالع، فإن كان يختلف لم يلزم أحد البلدين حكم الآخر.

 (আততাজরীদ, আবুল ফজল আলকিরমানী /৩৪০-৩৪১; এতে তিনি কথাই বলেছেন, যা ইমাম কুদূরীসহ অন্যান্য ফকীহগণ বলেছেন।)

. রযীউদ্দীন আসসারাখসী (৫৪৪ হি.)

গত সংখ্যায় ‘‘মুহীতুস সারাখসী’’ (মাখতূত) থেকে তাঁর বক্তব্য উদ্ধৃত হয়েছে।

. মাজদুশ শরীয়া সুলায়মান ইবনুল হাসান আলকিরমানী (কাযি মুহাম্মাদ)

আপন যুগে কাযিল কুযাত ছিলেন এবং ফিকহ-ফতোয়ার ক্ষেত্রে সমাধানদাতা মনীষী ছিলেন। ইমাম রুকনুদ্দীন আলকিরমানী রাহ. (৫৬৫ হি.) ‘‘জাওয়াহিরুল ফাতাওয়া’’য় প্রত্যেক বিষয়ের অধীনেআলবাবুল খামিসশিরোনামে তাঁর ফতোয়াসমূহ সংকলন করেছেন। ‘‘জাওয়াহিরুল ফাতাওয়া’’কিতাবুস সওমেআলবাবুল খামিসেআছে-

أهل بلد عيَّدوا يوم الإثنين، وأهل بلد آخر عيَّدوا يوم الثلثاء لا يجب عليهم قضاء يوم.

أهل بلد رأوا هلال رمضان وأعلموا أهل البلد الآخر بذلك، وهم لم يروا، فهذا على وجهين : إن كان المطلع في حقهما متحداً يلزم كل واحد منهما حكم الآخر، فإذا أعلمهم عدلان منهم يلزمهم حكم الصوم والفطر، وإن كان بين البلدين مسافة يختلف المطالع في حقهم فلا يلزم واحدا حكم الآخر.

অর্থ : কোনো শহরের অধিবাসীগণ সোমবার ঈদ করেছে, অন্য শহরের অধিবাসীগণ মঙ্গলবার তাহলে প্রথমোক্তদের উপর একদিনের কাযা জরুরি নয়।

কোনো শহরের অধিবাসীগণ রমযানের চাঁদ দেখেছে এবং অন্য কোনো শহরের অধিবাসীদেরকে সংবাদ পৌঁছাল, যারা নিজেরা চাঁদ দেখেনি, এক্ষেত্রে দুই অবস্থা : যদি উভয় শহরের উদয়স্থল অভিন্ন হয় তাহলে একের হুকুম অন্যের জন্য লাযিম হবে। সুতরাং তাদের দুজন বিশ্বস্ত ব্যক্তি তাদেরকে সংবাদ পৌঁছিয়ে থাকলে তাদের উপর রোযা-ঈদের বিধান আরোপিত হবে।

পক্ষান্তরে দুই শহরের মাঝে যদি পরিমাণ দূরত্ব হয় যে, উদয়স্থল আলাদা হয়ে যায় তাহলে এক শহরের উপর অন্য শহরের বিধানলাযিমহবে না।

(জাওয়াহিরুল ফাতাওয়া : ৩৬, মাখতূতা, জামিয়াতুল মালিক সাউদ, রিয়ায, সৌদী আরব)

. জামালুদ্দীন আলমুতাহহির ইবনে হুসাইন আলইয়াযদী

তাঁর বক্তব্যজাওয়াহিরুল ফাতাওয়া বরাতে বিগত সংখ্যায় পাঠ করেছেন।

১০. রুকনুদ্দীন মুহাম্মাদ ইবনে আবদুর রশীদ আলকিরমানী (৫৬৫ হি.)

‘‘জাওয়াহিরুল ফাতাওয়া’’ কিতাবুস সওমে ‘‘আলবাবুছ ছালিছে’’ অধীনে আতা ইবনে হামযা সাদীর একটি ফতোয়া নকল করার পর তাঁর মন্তব্য-

وهذا إذا كان بين البلدتين لا يختلف المطالع بحيث يلزم أحدهما حكم الآخر.

অর্থাৎ বিধান ক্ষেত্রে প্রযোজ্য যখন দুই শহরের অবস্থান এমন হবে যে, তাদের উদয়স্থল অভিন্ন থাকে, যার কারণে একের হুকুম অন্যের উপর লাযিম হয়।

আতা ইবনে হামযার ফতোয়া এই ছিল যে, এক শহরের কাযীর কাছে অন্য শহরের কাযীর সামনে প্রদত্ত সাক্ষ্যের বিষয়ে যদি দুইজন সাক্ষী সাক্ষ্য দেয় এবং সংশ্লিষ্ট শর্তসমূহ পাওয়া যায় তাহলে এই কাযী সে অনুযায়ী ফয়সালা করবে।

ফতোয়ার উপর ইমাম রুকনুদ্দীন কিরমানী উপরোক্ত মন্তব্য লিখেছেন।

১১. সিরাজুদ্দীন আলী ইবনে মুহাম্মাদ আল আভীশী (৫৬৯ হি.)

তিনি ‘‘আলফতোয়াস সিরাজিয়্যাহ’’য় সিদ্ধান্তই ব্যক্ত করেছেন। তিনি লেখেন-

أهل بلدة صاموا للرؤية ثلاثين يوما، وأهل بلدة أخرى تسعة وعشرين يوما للرؤية فعلى هؤلاء قضاء يوم إلا إذا كان بين البلدتين تباين بحيث تختلف المطالع.

এক শহরের অধিবাসীরা চাঁদ দেখে ত্রিশ দিন রোযা রাখল অন্য শহরের অধিবাসীরা চাঁদ দেখেই রাখল উনত্রিশ রোযা তাহলে এদেরকে একদিনের রোযা কাযা করতে হবে যদি না দুই শহরের মাঝে এমন পার্থক্য হয় যার দ্বারা উদয়স্থল আলাদা হয়ে যায়। (আলফাতাওয়াস সিরাজিয়্যাহ, পৃষ্ঠা : ১৬৯, প্রকাশনায় দারুল উলূম যাকারিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা)

১২. মালিকুল উলামা আলাউদ্দীন আলকাসানী (৫৮৭ হি.)

তাঁর কিতাব ‘‘বাদায়েউস সানায়ে ফী তারতীবিশ শারায়ে’’ ফিকহে ইসলামীর শীর্ষস্থানীয় কিতাবসমূহের একটি। কিতাবে তিনি আলোচিত মাসআলায় সিদ্ধান্তই ব্যক্ত করেছেন, যা অধিকাংশ বড় বড় হানাফী ফকীহের সিদ্ধান্ত। অর্থাৎ দূর-দূরান্তের শহর-নগরের ক্ষেত্রে এক এলাকার চাঁদ দেখা অন্য এলাকার জন্য লাযিম নয়। যার শিরোনাম তাঁরা এভাবে দিয়েছেন যে, উদয়স্থল আলাদা হলে তার ইতিবার করা চাই এবং এক জায়গার হুকুম অন্য জায়গায় প্রয়োগ না করা চাই।

 যেহেতু কাসানীর সিদ্ধান্ত এতই প্রসিদ্ধ যে, একে শুধু তাঁর যায়লায়ীর সিদ্ধান্ত মনে করা হয়েছে, কারণে তাঁর বক্তব্য উদ্ধৃত করার প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না। কারো উৎসাহ থাকলে বাদায়েউস সানায়ে (/২২৪-২২৫, দারু ইহইয়ায়িত তুরাছিল আরাবী, বৈরুত) খুলে দেখতে পারেন।

ফিকহ-ফতোয়ার অনুশীলনে রত তলাবায়ে কিরামের খিদমতে কথাও আরজ করছি যে, হযরত মাওলানা মুফতী রশীদ আহমদ লুধিয়ানবী রাহ. (১৪২২ হি.) ‘‘আহসানুল ফাতাওয়া’’য় (/৪৯৫) ইমাম কাসানী রাহ.-এর বক্তব্যের যে ব্যাখ্যা করেছেন তা সঠিক নয়। এটি

توجيه القول بما لا يرضى به القائل

এর আওতায় পড়ে। আহসানুল ফাতাওয়ার দাবি সঠিক হলে বাদায়ের ইবারত

فيعتبر في أهل كل بلد مطالع بلدهم دون البلد الآخر

না হয়ে এরূপ হত-

فيعتبر في أهل كل بلد حكم قاضيهم دون البلد الآخر.

তিনি ইমাম কাসানীর বক্তব্যকে যে মাসআলার দিকে নিতে চেয়েছেন তা তোবাদায়ে’-তে আলোচনায়ই আসেনি। সুতরাং প্রয়াস অর্থহীন। কাসানী এখানে যে বিষয়টি আলোচনা করছেন তা হচ্ছে কোন ক্ষেত্রে উনত্রিশওয়ালাদের উপর ত্রিশওয়ালাদের কারণে এক দিনের কাযা ওয়াজিব হবে, কোন ক্ষেত্রে হবে না। তিনি পরিষ্কার বলেছেন, উদয়স্থল আলাদা হলে কাযা ওয়াজিব নয়। কারণ অবস্থায় এক শহরের জন্য অন্য শহরের হুকুম অবশ্য-অনুসরণীয় নয়।

এখানে বিষয়ে একটু ইশারা করা হল।চাঁদ প্রমাণিত হওয়াএবং চাঁদের হুকুম প্রয়োগশীর্ষক আলোচনায় ‘‘আহসানুল ফাতাওয়া’’ ব্যাখ্যার ত্রুটি আরো পরিষ্কার হবে ইনশাআল্লাহ।

১৩. বুরহানুদ্দীন আলী ইবনে আবু বকর আলমারগীনানী (৫৯৩ হি.)

হেদায়া-গ্রন্থকারের ইলমী অবস্থান কারো অজানা নয়। তাঁর কিতাব ‘‘আততাজনীসু ওয়াল মাযীদ’’-এর বরাতে তাঁর বক্তব্য ইতিমধ্যে দুইবার উল্লেখ করা হয়েছে। এখানে তাঁর কিতাব ‘‘মুখতারাতুন নাওয়াযিল’’-এর ইবারত (উদ্ধৃতি) উল্লেখ করছি। কিতাবের ইবারত ‘‘তিবয়ানুল আদিল্লাহ ফী ইছবাতিল আহিল্লা’’য় (পৃষ্ঠা : ১৩) নকল করা হয়েছে। তাতে আছে-

وقال في مختارات النوازل : أهل بلد صاموا تسعة وعشرين يوما بالرؤية وأهل بلدة أخرى صاموا ثلاثين يوما بالرؤية، على الأولين قضاء يوم إذا لم تختلف المطالع بينهما، وأما إذا اختلفت المطالع لا يجب القضاء ... .

উদ্ধৃতির অর্থও তাই যা ‘‘আততাজনীসু ওয়াল মাযীদ’’-এর উদ্ধৃতির অর্থ।****

১৪   ১৫. জহীরুদ্দীন আবু বকর মুহাম্মদ ইবনে আহমাদ আল বুখারী (৬১৯ হি.)

তাঁর কিতাব ‘‘আলফাতাওয়ায যহীরিয়্যাহ’’ ‘‘আলফাওয়াইদুয যহীরিয়্যাহ’’ খুবই প্রসিদ্ধ নির্ভরযোগ্য বরাত-গ্রন্থ হিসেবে সমাদৃত। তিনি ইমাম যহীরুদ্দীন আলহাসান ইবনে আলী আলমারগীনানীর শাগরিদ ছিলেন এবং সম্ভবত তাঁরই নামানুসারে নিজের কিতাবের নাম রেখেছেন। তিনিআযযাহীরিয়্যাহ কিতাবুস সওম- মাসআলার উপর আলোচনা করেছেন, যার শুধু একটি বাক্য হিজরী অষ্টম শতকের ঐতিহাসিক ফতোয়া-সংকলন ‘‘আলফাতাওয়াত তাতারখানিয়া’’য় (/৩৬৫) (তাহকীক শাববীর আহমদ কাসেমী) নকল করা হয়েছে। এক প্রসঙ্গে ‘‘আযযহীরিয়্যাহ’’কিতাবুল আইমান’ (শপথ অধ্যায়)-- মাসআলার আলোচনা এসেছে। ওখানে তিনি যাকিছু লিখেছেন তা আল্লামা যাইন ইবনু নুজাইম ‘‘আলবাহরুর রাইক’’ কিতাবে নকল করেছেন। অপ্রাসঙ্গিক স্থানের বরাত আমাকে সরবরাহ করেছে আমাদের শাগরিদ মৌলভী ফয়জুল্লাহ হবিগঞ্জী। আলবাহরুর রাইক-এরকিতাবুল আইমান’-এর শেষে ‘‘আযযহীরিয়্যাহ’’ থেকে অনেক মাসআলা একসাথে নকল করা হয়েছে। তন্মধ্যে একটি মাসআলা এই-

وسئل الأوزجندي عمن قال لصاحب الدين :  إن لم أقض حقك يوم العيد فكذا، فجاء يوم العيد إلا أن قاضي هذه البلدة لم يجعله عيدا ولم يصل فيه صلاة العيد لدليل لاح عنده، وقاضي بلدة أخرى جعله عيدا؟

قال : إذا حكم قاضي بلدة بكونه عيدا يلزم ذلك أهل بلدة أخرى إذا لم تختلف المطالع، كما في الحكم بالرمضانية.

যহীরিয়্যাহ-লেখক বলেন, উযাজান্দীকে জিজ্ঞাসা করা হল, কেউ তার ঋণদাতাকে বলল, ঈদের দিন তোমার ঋণ আদায় না করলে এই হবে (কোনো কসম করল) এখন ঈদ এমন হল যে, সে যে শহরের অধিবাসী সেখানের কাযী কোনো যুক্তিসঙ্গত কারণে ঈদ ঘোষণা করা থেকে বিরত থাকল, কিন্তু অন্য কোনো শহরের কাযী ঈদ ঘোষণা করল। (তাহলে কোন দিন ঈদের দিন গণ্য হবে এবং লোকের কসমের কী হবে)

উযাজান্দী রাহ. জবাব দিলেন, উপরোক্ত দুই শহরের উদয়স্থল যদি অভিন্ন হয় তাহলে এক শহরের কাযীর ঘোষণা অন্য শহরের জন্যও অবশ্য-অনুসরণীয় হবে। রমযান শুরুর ঘোষণার ক্ষেত্রেও মাসআলা। (আলবাহরুর রাইক, ইবনে নুজাইম মিসরী /৬১৫)

উযাজান্দীকে?

উযাজান্দের অধিবাসীদের মাঝে দুজন ফকীহই প্রসিদ্ধ। এক. কাযী খান রাহ. (৫৯২ হি.), যিনি ফতোয়া খানিয়ার লেখক। দুই. তাঁর দাদা শামসুল ইসলাম মাহমূদ উযাজান্দী রাহ. কাযী খান তো কাযীখান নামেই মশহূর। আরউযাজান্দীবলে সাধারণত তাঁর দাদাজানকেই নির্দেশ করা হয়। ‘‘খুলাসাতুল ফাতাওয়া’’ ‘‘আলমুহীতুল বুরহানী’’ কয়েক জায়গায় নিসবত দ্বারা তাঁকেই বোঝানো হয়েছে।

সুতরাং ‘‘যহীরিয়্যাহ’’ উপরোক্ত মাসআলা থেকে যেমন আল্লামা জহীরুদ্দীন বুখারী রাহ. (৬১৬ হি.)-এর মত জানা গেল তেমনি শামসুল ইসলাম ইমাম মাহমূদ উযাজান্দী রাহ.-এর মতও জানা গেল। আরো