যিলহজ্ব ১৪৪০ || আগস্ট ২০১৯

মুহাম্মাদ টিপু সুলতান - কাশিপুর, যশোর

৪৮৫২. প্রশ্ন

একবার আমি শপথ করে বলেছিলাম, আমার স্ত্রীর রান্না আর খাব না। পরে এই শপথ ভঙ্গ হয়ে যায় এবং আমি তার হাতের রান্না খাই। এর কাফফারা আদায়ের জন্য আমি দরিদ্র দশ জনকে দাওয়াত করি। তারা এসে দুপুরে আমার বাসায় খানা খায়। খানার পর তাদেরকে পরের দিন দুপুরে আবার আসার জন্য বলে দিই। সে হিসেবে তারা পরের দিনও এসে খানা খায়। কিন্তু তাদের মধ্যে দুইজন এমন ছিল, যারা আগের দিন আসেনি। এখন গ্রামের এক আলেম বলছেন, কাফফারা আদায়ের জন্য প্রথম দিন যারা এসেছিল তাদেরকেই খাওয়াতে হবে। অন্য দুই জনকে খাওয়ালে কাফফারা আদায় হবে না।

মুফতী সাহেবের কাছে আমার জানার বিষয় হল, এক্ষেত্রে আসলেই কি প্রথম দশ জনকে খাওয়াতে হবে?

নাকি যে কোনো দশজনকে খাওয়ালে হবে? যদি না হয় তাহলে এখন আমার করণীয় কী? এখন কি পুনরায় দশজনকে দু’বেলা খাওয়াতে হবে? দয়া করে জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

উক্ত আলেম ঠিকই বলেছেন। কসমের কাফফারা আদায়ের জন্য দশজন দরিদ্রের প্রত্যেককে তৃপ্তি সহকারে দু’বেলা খানা খাওয়ানো শর্ত। কিন্তু প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে দ্বিতীয় বেলা যেহেতু প্রথম দশজনের দুইজন বাদ পড়েছে, তাই আপনার কাফফারা এখনো আদায় হয়নি। এক্ষেত্রে আপনার করণীয় হল, যে চার জন লোক এক বেলা করে খেয়েছে তাদের যে কোনো দু’জনকে আরো এক বেলা খানা খাওয়ানো। অথবা অন্য কোনো দু’জন দরিদ্রকে দু’বেলা কাফফারার নিয়তে খানা খাওয়ানো। এতেও আপনার কাফফারা আদায় হয়ে যাবে। নতুন করে দশজনকে খানা খাওয়ানো লাগবে না।

-বাদায়েউস সানায়ে ৪/২৬১; আলমাবসূত, সারাখসী ৮/১৫০; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৬/৩০৩; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ২/৬৩; রদ্দুল মুহতার ৩/৭২৬

এই সংখ্যার অন্যান্য প্রশ্ন-উত্তর পড়ুন

advertisement
advertisement