শাওয়াল ১৪৪০ || জুন ২০১৯

খলিলুর রহমান - ভেদেরগঞ্জ, শরীয়তপুর

৪৮০০. প্রশ্ন

আমাদের গ্রামের বাড়ীতে এক প্রতিবেশীর একটি বিড়াল ছিল। বিড়ালটি বড় হয়ে খুব ক্ষতি করতে শুরু করেছিল। বাড়ীর মুরগি, কবুতরের বাচ্চা ধরে ধরে খেয়ে ফেলত। উক্ত প্রতিবেশীকে বিড়ালটি তাড়িয়ে দিতে বা বেঁধে রাখতে বললে তিনি বলতেন, ‘তাড়িয়ে দিলেও আবার চলে আসবে, আর বেঁধে রাখাও মুশকিল।’ শেষ পর্যন্ত বাড়ীর লোকজন অতিষ্ট হয়ে গেলে আমরা কয়েকজন বিড়ালটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলেছি। পরে শুনলাম, হাদীসে আছে, একটি বিড়ালকে হত্যা করার কারণে এক মহিলা জাহান্নামী হবে। তাই এখন ভয় হচ্ছে। দয়া করে জানাবেন, আমাদের উক্ত কাজটি কি ঠিক হয়েছে।

 

উত্তর

অনিষ্টকারী বিড়াল মেরে ফেলা জায়েয। কেননা হাদীস শরীফে ক্ষতিকর প্রাণিকে মেরে ফেলার বৈধতার কথা এসেছে। তাই বিড়ালটিকে মেরে ফেলা জায়েয হয়েছে। তবে পিটিয়ে মারা ঠিক হয়নি। কেননা এর দ্বারা প্রাণির বেশি কষ্ট হয়। আপনাদের উচিত ছিল কষ্ট কম হয় এমন কোনো পদ্ধতি অবলম্বন করা। যেমন ধারালো অস্ত্র দ্বারা জবাই করে দেওয়া।

আর আপনি যে ঘটনার কথা উল্লেখ করেছেন তা ঐ বিড়ালকে খাবার-পানীয় না দেওয়ার জন্য ছিল। কারণ, উক্ত মহিলা বিড়ালটিকে আবদ্ধ করে রেখেছিল এবং তাকে কোনো দানা-পানিও দেয়নি। যার দরুণ সে মারা গিয়েছিল। (দেখুন, সহীহ মুসলিম, হাদীস ২২৪২)

-ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৫/৩৬১; ফাতাওয়া কারিইল হেদায়াহ, পৃ. ২০০; আদ্দুররুল মুখতার ৬/৩৮৯, ৪০২

এই সংখ্যার অন্যান্য প্রশ্ন-উত্তর পড়ুন

advertisement
advertisement