নাজমুল হাসান - লালমনিরহাট

৪৭১৯. প্রশ্ন

আমি মাঝে মাঝে তাবলীগে যাই। কখনো কখনো আমাদের জামাতের রোখ প্রত্যন্ত গ্রামে পড়ে। গ্রামের মসজিদগুলোতে সাধারণত অযু-গোসলের ব্যবস্থা মসজিদ থেকে একটু দূরে থাকে। সেখানে মাঝ রাতে যদি গোসলের প্রয়োজন দেখা দেয় তাহলে করণীয় কী? কারণ এমন জায়গায় গভীর রাতে একা একা বের হয়ে গোসল করে নেওয়াটা কঠিন। দয়া করে জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

মসজিদে অবস্থানকারী ব্যক্তি গোসলের প্রয়োজন দেখা দেওয়ার পর কোন ওজরের কারণে মসজিদ থেকে বের হতে না পারলে সে তায়াম্মুম করে নিবে। পরবর্তীতে সুযোগ হওয়া মাত্রই বিলম্ব না করে মসজিদ থেকে বের হয়ে যাবে। এবং গোসল করে পবিত্রতা অর্জন করবে।

-হালবাতুল মুজাল্লী ১/১৯৩; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/৩৮; আদ্দুররুল মুখতার ১/১৭২; কেফায়াতুল মুফতী ৩/৪০৪

শেয়ার লিংক

মুহাম্মদ মীযানুর রহমান - রাজবাড়ী

৪৭১৮. প্রশ্ন

বাচ্চার পেশাবের বেশ কিছু কাঁথা-কাপড় মেঝেতে রাখা ছিল। একবার করে হালকাভাবে ধুয়ে শুধু বড় আকারের নাপাকির গন্ধ ও চিহ্ন দূর করা হয়েছিল। পুরোপুরি পাক করা হয়নি। ঐ নাপাক কাপড়ের পানি মেঝেতে লেগে বেশ খানিকটা জায়গা ভেজা মতোন হয়ে যায়। ঘর অপরিসর হওয়ায় ঐ জায়গা ছাড়া নামায পড়ার মতো আর জায়গাও নেই। এদিকে সময় এত অল্প যে, ঐ জায়গা মুছে পাক করতে গেলে নামাযের ওয়াক্ত শেষ হয়ে যায়। এ অবস্থায় ঐ মেঝেতে জায়নামায বিছিয়ে নামায পড়লে কি নামায সহীহ হবে? জানালে কৃতজ্ঞ থাকব।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে ঐ নাপাক জায়গা যদি শুকনো থাকে, ফলে জায়নামায বিছানো দ্বারা যদি তা ভিজে না ওঠে তাহলে সেখানে জায়নামায বিছিয়ে নামায পড়া যাবে। আর যদি জায়গা পুরো শুকনো না হয় এবং জায়নামায বিছালে জায়নামায এভাবে ভিজে যায় যে, তাতে নাপাকির স্পষ্ট গন্ধ পাওয়া যায় তাহলে সেক্ষেত্রে ঐ জায়নামাযে নামায পড়া যাবে না।

-ফাতহুল কাদীর ১/১৬৯; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১/৪৩৪; ফাতাওয়া খানিয়া ১/৩১; আলবাহরুর রায়েক ১/২৩২; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/৪৭

শেয়ার লিংক