জুমাদাল উলা-১৪৩২ || এপ্রিল-২০১১

মুহাম্মাদ সালমান - হবিগঞ্জ

২২০২. প্রশ্ন

আমাদের বাড়ির পাশে একটি মাযার আছে। যাতে প্রতি বছর ওরস হয় এবং প্রচুর লোকের সমাগম হয়। এক ওরসের সময় বাড়ি থেকে শুনলাম মাইকে এক লোক বলছে, হাদীসে পাকে আছে, ও আমার উম্মতেরা, যখন তোমরা কোন ব্যাপারে পেরেশান হবে তখন কবরবাসীদের নিকট সাহায্য প্রার্থনা করবে। জানতে চাই, এটি    বাস্তবেই হাদীস কি না।

 

উত্তর

এটি লোকমুখে হাদীস হিসেবে প্রসিদ্ধ হলেও বাস্তবে হাদীস নয়,  শাইখুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া রাহ., শাহ আবদুল আযীয মুহাদ্দিসে দেহলভী রাহ. ও আল্লামা আবদুল হাই লখনভী রাহ.সহ বিজ্ঞ উলামায়ে কেরাম সুস্পষ্ট ভাষায় একে মওযূ ও জাল বলেছেন। অতএব একে হাদীস মনে করা যাবে না এবং এ ধরনের আকীদাও পোষণ করা যাবে না। আর এমন কোনো কাজও করা যাবে না।প্রকাশ থাকে যে, কবরবাসীর নিকট সাহায্য প্রার্থনা করা শিরক। কবরবাসী যেই হোক না কেন সে কোনো ক্ষতি থেকে হেফাযত করতে, কোনো বিপদ হতে রক্ষা করতে কিংবা কোনো উপকার পৌঁছাতে পারে না। এগুলো কেবল আল্লাহ তাআলার কাছে চাওয়া যায়। কুরআন মজীদে ইরশাদ হয়েছে, (তরজমা) সেই ব্যক্তি অপেক্ষা অধিক বিভ্রান্ত কে, যে আল্লাহর পরিবর্তে এমন কিছুকে ডাকে যা কেয়ামত দিবস পর্যন্ত তাতে সাড়া দিবে না এবং এগুলি তাদের প্রার্থনা সম্বন্ধেও অবহিত নয়। (সূরা আহকাফ : ৫)

হাদীস শরীফে আছে, যখন তুমি কিছু চাইবে আল্লাহর কাছে চাও। যখন তুমি সাহায্য প্রার্থনা করবে আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থনা কর। জেনে রেখো, পুরো উম্মত যদি তোমার উপকার করতে একত্রিত হয় আল্লাহ তাআলা তোমার জন্য যা লিখে রেখেছেন তা ব্যতীত তারা তোমার বিন্দুমাত্রও উপকার করতে পারবে না। তদ্রূপ তারা যদি তোমার ক্ষতি করতে একত্রিত হয় তবে আল্লাহ তাআলা তোমার জন্য যা লিখে রেখেছেন তা ব্যতীত তারা তোমার বিন্দুমাত্রও ক্ষতি করতে পারবে না।

-জামে তিরমিযী, হাদীস : ২৫১৬; মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ২৬৬৯; ফাতাওয়া ইবনে তাইমিয়া ১/৩৫৬, ১১/২৯৩; মাজমুআতুল ফাতাওয়া ১/১৩৮; ইক্বতিযাউস সিরাতিল মুসতাকিম লিমুখালাফাতি আসহাবিল জাহীম ২/৬৮৩; ফাতাওয়া আযীযী ১/১৭৮

এই সংখ্যার অন্যান্য প্রশ্ন-উত্তর পড়ুন

advertisement
advertisement