সফর ১৪৪১ || অক্টোবর ২০১৯

আবদুর রহমান - ভিক্টোরিয়া পার্ক, ঢাকা

৪৮৯৫. প্রশ্ন

কয়েকদিন আগে আমাদের এলাকার একটি লোক মারা যান। লোকটি অনেক ধনী ছিলেন। তিনি দুই বিবাহ করেছিলেন। প্রথম স্ত্রী থেকে তার দুই ছেলে তিন মেয়ে আর দ্বিতীয় স্ত্রী থেকে এক ছেলে। লোকটি মারা যাওয়ার পাঁচ মাস পূর্বে স্ট্রোক করে প্যারালাইজড হয়ে গিয়েছিলেন। অসুস্থ হওয়ার পর থেকে প্রথম স্ত্রীর ঘরেই থাকতেন। তখন প্রথম স্ত্রী ও তার সন্তানেরা তাকে তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার পরামর্শ দেয়। তাদের কথা অনুযায়ী তিনি কয়েকজন আত্মীয়-স্বজনের সামনে তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে ডেকে বলেন, ‘আজ থেকে তুমি তালাক’। তালাক দেওয়ার দেড় মাস পর তিনি মারা যান। এখন তার দ্বিতীয় স্ত্রী মিরাসের সম্পত্তি পাবে কি না এ নিয়ে আমাদের এলাকায় বিভিন্ন ধরনের কথা চলছে। তাই মুহতারামের নিকট দুটি বিষয়ে সঠিক সমাধান চাচ্ছি :

এক. লোকটির দ্বিতীয় স্ত্রী মিরাসের সম্পত্তি পাবে কি না?

দুই. প্রথম স্ত্রী ও তার সন্তানদের দাবি হল, লোকটি  ‘আজ থেকে তুমি তালাক’ এ কথা বলে বায়েন তালাকের নিয়ত করেছিল।  তাই সে সম্পত্তি পাবে না। জানার বিষয় হচ্ছে, ‘তুমি তালাক’- বলে বাইন তালাকের নিয়ত করা যায় কি না?

উল্লেখ্য, দ্বিতীয় স্ত্রীর ইদ্দত এখনো শেষ হয়নি।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে লোকটি তার স্ত্রীকে ‘আজ থেকে তুমি তালাক’- একথা বলার দ্বারা তার স্ত্রীর উপর এক তালাকে রাজয়ী পতিত হয়েছে। এক্ষেত্রে বায়েন তালাকের নিয়ত ধর্তব্য নয়। কারণ বায়েনের জন্য শব্দ জরুরি। শুধু নিয়ত যথেষ্ট নয়। আর তালাকে রাজয়ীপ্রাপ্তা স্ত্রীর ইদ্দতের মধ্যে স্বামী মারা গেলে উক্ত স্ত্রী স্বামী থেকে মিরাস পায়। তাই প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে দ্বিতীয় স্ত্রীও তার স্বামী থেকে মিরাস পাবে।

উল্লেখ্য, ‘মৃত্যুর আশংকা রয়েছে এমন রোগে আক্রান্ত ব্যক্তি যদি তার স্ত্রীকে মিরাস থেকে বঞ্চিত করার উদ্দেশ্যে বায়েন তালাকও দেয় এবং স্ত্রীর ইদ্দতের মধ্যে স্বামী ঐ রোগেই মারা যায় তাহলে ঐ স্ত্রী মিরাসের অধিকারী হয়।

-বাদায়েউস সানায়ে ৩/১৬৪; তাবয়ীনুল হাকায়েক ৩/৩৯; আলইখতিয়ার ৩/১৫২; আলবাহরুর রায়েক ৩/২৫৫; আলমুহীতুল বুরহানী ৫/১৬৩; ফাতহুল কাদীর ৪/২

এই সংখ্যার অন্যান্য প্রশ্ন-উত্তর পড়ুন

advertisement
advertisement