শাওয়াল ১৪৪০ || জুন ২০১৯

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক - মদীনা মুনাওয়ারা, সৌদি আরব

৪৭৯৮. প্রশ্ন

মুহতারাম, আমি সৌদি আরবের পবিত্র মাদীনাতে থাকি। একটি দোকানে কাজ করতাম। গত কয়েক বছর আগে হজে¦র মৌসুমে একটি মানিব্যাগ কুড়িয়ে পাই। তাতে কিছু সৌদি রিয়াল ও বাংলাদেশী টাকা ছিল। অনেক দিন সেগুলো আমার কাছে অক্ষত ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে আমার অত্যন্ত প্রয়োজনের কারণে সেগুলো খরচ করে ফেলি।

এখন আমি অপরের এই হক থেকে কীভাবে পুরোপুরি মুক্ত হতে পারি? আশা করছি সম্মানিত মুফতিয়ানে কেরাম সুচিন্তিত উত্তর প্রদান করে চিরকৃতজ্ঞ করবেন।

এখানে একটি বিষয় উল্লেখ্য যে, উক্ত মানিব্যাগে তার মালিকের সাথে যোগাযোগ করার কোনো মাধ্যম (মোবাইল নম্বর, ইমেইল, ঠিকানা) পাওয়া যায়নি।

উত্তর

কুড়িয়ে পাওয়া বস্তু আমানত। তা পাওয়ার পর প্রাপ্তিস্থানের আশেপাশে ও জনসমাগমে প্রাপ্তির ঘোষণা দেওয়া এবং মালিক খোঁজ করে তাকে তা পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করা কর্তব্য ছিল। কিন্তু তা না করে মানিব্যাগটি নিজের কাছে রেখে দেওয়া এবং পরে সে টাকা খরচ করে ফেলা অন্যায় ও গুনাহের কাজ হয়েছে। আপনার ভাষ্যমতে বর্তমানে যেহেতু মালিকের খোঁজখবর পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই তাই সমপরিমাণ টাকা মালিকের পক্ষ থেকে গরীব-মিসকীনদেরকে সদকা করে দিতে হবে।

-বাদায়েউস সানায়ে ৫/২৯৬; আদ্দুররুল মুখতার ৪/২৭৮; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ২/২৮৯; আলবাহরুর রায়েক ৫/১৫২; মাজমাউল আনহুর ২/৫২৬

এই সংখ্যার অন্যান্য প্রশ্ন-উত্তর পড়ুন

advertisement
advertisement