তানভীর আহমেদ - কুমিল্লা

৪৯৪৯. প্রশ্ন

অযু করার সময় অনেকে অপ্রয়োজনীয় প্রশ্ন করে থাকে। উত্তর দিতে না পারায় নিজের কাছে অনেক খারাপ লাগে। জানার বিষয়, তার মনের দিকে লক্ষ করে যদি উত্তর দেওয়া হয়, তাহলেও কি অযু মাকরূহ হবে?

 

উত্তর

বিনা প্রয়োজনে অযুতে কথা বলা অনুচিত। তবে কথা বললেও অযু মাকরূহ হবে না।

-খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৫; হালবাতুল মুজাল্লী ১/৯৪; আসসেআয়া ১/৮০; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১/২২৭, ১৮০

শেয়ার লিংক

মুহিববুর রাহমান - সড়াইল, বি. বাড়িয়া

৪৯৪৮. প্রশ্ন

একবার দূরে কোথাও যাচ্ছিলাম। রাতে গাড়িতে উঠেছি। ফজরের সময় দশ মিনিটের জন্য বিরতি দেওয়া হল। আমি এবং আমার পাশের সিটের সাথী একসাথে নামায আদায় করলাম। আমি তো অযু করেছি কিন্তু সে অযু করেনি। তাকে জিজ্ঞাসা করলে সে বলল, আমি অযু করে উঠেছিলাম, আর বাসের সিটে বসে ঘুমালে অযু ভাঙে না। এখন মুফতী সাহেবের কাছে আবেদন, এ বিষয়ে সঠিক মাসআলাটি জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

বাসের সিটে যদি মোটামুটি সোজা হয়ে বসা হয় এবং নিতম্ব সিটের সাথে এঁটে থাকে তাহলে এ অবস্থায় ঘুমালে অযু নষ্ট হবে না। সুতরাং প্রশ্নোক্ত ব্যক্তি যদি ওভাবে ঘুমিয়ে থাকে তাহলে তার অযু নষ্ট হয়নি। সেক্ষেত্রে তার আদায়কৃত নামায সহীহ হয়েছে।

প্রকাশ থাকে যে, চেয়ার কোচের স্লিপিং জাতীয় সিট একেবারে ফেলে দিয়ে ঘুমালে অযু নষ্ট হয়ে যাবে। কেননা এক্ষেত্রে নিতম্ব সিটের সাথে এঁটে থাকে না।

-আততাজনীস ওয়াল মাযীদ ১/১৩০; মাজমাউল বাহরাইন পৃ. ৭৩; আলবাহরুর রায়েক ১/৩৮; হালবাতুল মুজাল্লী ১/৩৯০; ফাতাওয়া খানিয়া ১/৪১; রদ্দুল মুহতার ১/১৪১

শেয়ার লিংক

আবদুল্লাহ হাসান - মাগুরা

৪৯৪৭. প্রশ্ন

মসজিদে যাওয়ার সময় রাস্তায় পড়ে গিয়ে হাত ছিলে যায়। এ অবস্থায়ই নামাযে শরীক হয়ে যাই। নামায শুরু করার সময় হাতের ছিলা জায়গাটা সাদা হয়ে ছিল। যখন নামায শেষ করি তখন দেখি রক্তে চামড়াটা লাল হয়ে আছে। এখন জানার বিষয় হল, আমার এই নামায কি সহীহ হয়েছে?

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে ক্ষত স্থান হতে রক্ত আশপাশে না গড়ালে আপনার নামায সহীহ হয়েছে। শুধু চামড়া লাল হওয়ার কারণে অযু নষ্ট হয় না।

-আলজামেউস সাগীর পৃ. ৭২; বাদায়েউস সানায়ে ১/১২২; ফাতহুল কাদীর ১/৩৪; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১/২৪৩; রদ্দুল মুহতার ১/১৩৫

শেয়ার লিংক