শাওয়াল ১৪৩০ || অক্টোবর ২০০৯

সুগরা বিনতে সিদ্দীক - শহীদ বাড়িয়া

প্রশ্ন

আমি হেদায়া আওয়ালাইন পড়ছি। আগামী বছর মেশকাত (সাথে জালালাইনও) পড়ব ইনশাআল্লাহ। আগামী বছরের কিতাবগুলো, বিশেষত তাফসীর ও হাদীস বিষয়ক, ভালোভাবে আয়ত্ত করার জন্য কি কি গ্রন' সহায়ক হতে পারে এবং রমযানের দীর্ঘ ছুটিতে আমাদের এ স-রের ছাত্রীদের জন্য করণীয় কী? উল্লেখ্য, আমি আরবী ও উর্দূ কিতাবাদি পড়লে মোটামুটি বুঝি।

উত্তর

আপনার চিঠি সম্ভবত দেরিতে পৌঁছেছে। এই সংখ্যা পাঠকবৃন্দের সামনে আসতে আসতে রমযানুল মুবারক বিদায় নিয়ে যাবে। রমযানুল মুবারকের মূল কাজ তো হল সিয়ামে রমযান, কিয়ামে রমযান (তারাবী, তাহাজ্জুদ), তিলাওয়াতে কুরআন, মুতালাআয়ে কুরআন, তাওবা-ইসি-গফার ও অধিক পরিমাণে আল্লাহর যিকর। অন্যান্য কাজ শুধু প্রয়োজন পরিমাণে হওয়া চাই। আর যদি আমাদের পূর্বসূরীদের মতো রমযান মাসে রমযানের জন্যই ফারিগ ও সকল ঝামেলা থেকে মুক্ত হওয়া যায় তবে তো নূরুন আলা নূর। মিশকাত-জামাতের কিতাবসমূহের বিষয়ে আমি বেশ কয়েকবার লিখেছি। এখন শুধু এটুকু বলছি যে, আপনি অধিক মনোযোগ দিন যেন হাদীস শরীফের শুদ্ধ ও প্রাঞ্জল তরজমা করতে পারেন এবং তার সঠিক মর্ম অনুধাবন করতে পারেন। দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রয়োজনমতো অন্যান্য ‘ইলমী বহছ’ অধ্যয়ন করুন। উপরোক্ত দুই বিষয়ে সহযোগী গ্রন'সমূহ সম্পর্কে জানতে চাইলে অনুগ্রহপূর্বক আলকাউসারের বিগত সংখ্যাগুলোতে শিক্ষার্থীদের পাতায় দেখুন অথবা আপনার আসাতিযায়ে কেরাম থেকে জেনে নিন।

এই সংখ্যার অন্যান্য শিক্ষা পরামর্শসমূহ পড়ুন

advertisement