সফর ১৪৩৯ || নভেম্বর ২০১৭

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক - ঢাকা

প্রশ্ন

উস্তাযে মুহতারাম! আমি মাওলানা হারুন ছাহেবের রচিত ‘আলফাতহুর রব্বানী’ কিতাবটি পড়ছিলাম। এর শুরুতে আপনার একটি তাকরীয রয়েছে। কিন্তু কিতাবটির ২৯৮-২৯৯ পৃষ্ঠায় একটি কথা দেখে খুব বিস্মিত হলাম। কারণ এতে আলফুতুহাতুল মাক্কীয়াকে ত্রুটিমুক্ত কিতাব বলা হয়েছে। আমার প্রশ্ন হল, এমন একটি কিতাবকে কীভাবে ত্রুটিমুক্ত বলা হল?! জানি না, কিতবারের ব্যাপারে এই মন্তব্য তাকরীয লেখার আগে আপনার নযরে এসেছি কি না । সুতরাং হযরতের কাছে আমার আবেদন, কিতাবটি সম্পর্কে আপনার সুচিন্তিত মতামত ও তাহকীক কীÑ জানালে খুবই উপকৃত হব। আল্লাহ তাআলা আপনাকে উত্তম বিনিময় দান করুন।

উত্তর

বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত করার জন্য আপনাকে শুকরিয়া। জাযাকাল্লাহু খায়রান। আলফাতহুর রব্বানী নামে যে হাশিয়াটির কথা আপনি উল্লেখ করেছেন তার  শুরুতে আমার যে লেখাটি রয়েছে তার শিরোনাম হল ‘কালিমাতুশ শুক্র’। তাকরীয নয়। পারিভাষিক তাকরীয এবং কালিমাতুশ শুক্র নামে আমি যা লিখেছি এ দুয়ের মাঝে পার্থক্য রয়েছে। কিতাবটির আদ্যপ্রান্ত সব কথা আমি পড়িনি। সুতরাং আপনি যে কথার প্রতি ইঙ্গিত করেছেন তা ইতোপূর্বে আমার নযরে আসেনি। আপনি বলার পর আমি তা দেখেছি।

লক্ষণীয়, উপরোক্ত স্থানে টীকাকার আসলে আল-ফুতুহাতুল মাক্কীয়াকে ত্রুটিমুক্ত কিতাব বলে কোনো রায় প্রদান করেননি বা এ বিষয়ে তাঁর কোনো তাহকীক ও ব্যাখ্যা বিশ্লেষণও পেশ করেননি এবং সম্ভবত এমনটা তার উদ্দেশ্যও ছিল না। এখানে মূলত তিনি প্রসঙ্গক্রমে এ ব্যাপারে কেবল  লতীফা ও চুটকি হিসেবে একটি ঘটনা উল্লেখ করেছেন, যা থেকে আলফুতুহাতুল মাক্কীয়া কিতাবটি ত্রুটিমুক্ত হওয়া প্রমাণীত হয় না এবং লেখক তা প্রমাণ করতে চানওনি। খাব এবং কাশফ ও কারামত সম্পর্কে আমাদের কিতাব ‘তাসাউফ : তত্ত্ব ও বিশ্লেষণ’-এ যে আলোচনা রয়েছে তা সামনে থাকলে কোনো ভুল ধারণা সৃষ্টি হওয়ার কথা ছিল না। তারপরও কারো ক্ষেত্রে ভুল ধারণার সৃষ্টি করতে পারে, তাই এ ধরনের ঘটনা উল্লেখ না করাই উচিত। আমি যদি ছাপার আগে দেখতাম তবে  এ বিষয়টি বাদ দেওয়ার পরামর্শ দিতাম।

ফুতুহাতে মাক্কীয়া সম্পর্কে আপনি আমার রায় ও তাহকীক জানতে চেয়েছেন, দেখুন, কোনো কিতাব সম্পর্কে রায় প্রদান করতে হলে সেই কিতাবটি আদ্যপ্রান্ত ভালভাবে পড়া দরকার, কিন্তু আমি এ কিতাবটি পড়িনি এবং তা পড়ার প্রয়োজনও বোধ করি না। সুতরাং নিজ থেকে এ কিতাবের ব্যাপারে কোনো রায় প্রদান করার কোনো প্রশ্নই আসে না। তবে যদি কিছু বলতেই হয় তাহলে আমি এ ব্যাপারে আকাবিরদের কথাই তো শুনিয়ে দিতে পারি। তো এখানে আমি মুজ্জাদ্দিদে আলফেসানী আহমদ সেরহিন্দী রাহ. (১০৩৪ হি.)-এর মাকতুবাত থেকে কয়েকটি উদ্ধৃতি পেশ করছিÑ

১. كلام محمد عربى عليہ وعلى آلہ الصلواة والسلام دركار است نہ كلام محي الدين عربى وصدر الدين قونوى وعبد الرزاق كاشى، مارا بانص كار است نہ بفص، فتوحات مدنيہ از فتوحات مكيہ مستغنى ساختہ است. (مكتوبات، حصۂ  دوم، ص ১১১، مكتوب ১০০)

২. از نص بفص نميگرانيد، و از فتوحات مدنيہ بفتوحات مكيہ التفات نمى كند. (مكتوبات مجدد، حصۂ سوم ص১২، مكتوب ১৩১، مسلسل ৩০৪)

৩. "وعمل صوفيہ در حل وحرمت سند نيست، ہميں بس نيست كہ ما ايشاں را معذور داريم وملامت نہ كنيم؟ وامر ايشاں را بحق سبحانہ وتعالى مفوض داريم؟

اينجا قول امام ابي حنيفہ وامام ابي يوسف وامام محمد معتبر است، نہ عمل ابي بكر شبلی   وابى حسن نوری، ... " (مكتوبات مجدد، دفتر اول ، حصۂ چہارم ص১৭، ج، مسلسل ৬২৬)

আল্লাহ করুন, আপনি মুজাদ্দিদ রাহ.-এর উপরোক্ত কথাগুলো বুঝবেন এবং সেগুলোর যথাযথ ব্যবহার করবেন।

এই সংখ্যার অন্যান্য শিক্ষা পরামর্শসমূহ পড়ুন

advertisement
advertisement