সফর ১৪৩০ || ফেব্রুয়ারী ২০০৯

মুহাম্মাদ তামজীদ - নবীনগর, বি.বাড়িয়া

প্রশ্ন

ক) আমি তাখাসসুসের একজন ছাত্র। আমি যখনই ফাতহুল বারী বা অন্য মাযহাবের কোনো আলিমের লিখিত কিতাব পড়তে বসি তখন আমার মনে এই সংশয় সৃষ্টি হয় যে, আমি  তো  হানাফী, আর আমার মাঝে হানাফী মাযহাবের ফিকহ, উসূলে ফিকহ সম্বন্ধে পূর্ণ দক্ষতা নেই। এখন আমি যদি অন্য মাযহাবের কিতাবে এমন কিছু পাই, যা হানাফী মাযহাব পরিপন্থী এবং সেখানে হানাফী মাযহাবের ফয়সালা উল্লেখ না থাকে তখন হতে পারে আমি নিজের অযোগ্যতার কারণে ভুলের শিকার হয়ে পড়ব। এ বিষয়ে আপনার মূল্যবান দিক নির্দেশনা কামনা করি।


খ) এ প্রসঙ্গে আরেকটি প্রশ্ন হল, আমরা জানি, চার মাযহাবের প্রত্যেকটিই হক। এখন কোনো নির্ভরযোগ্য কিতাবে যদি একটি মাসআলা দলীল-প্রমাণের দ্বারা সাব্যস্ত করা হয় আর মাসআলাটি হানাফী মাযহাব পরিপন্থী হয় এবং আমার এ কথা জানা না থাকে, এমতাবস্থায় আমার জন্য কি ঐ মাসআলা অনুযায়ী আমল করা সহীহ হবে? এবং এটা কি তালফীক হবে? অথচ এখানে তো আমি নিজের সুবিধা লক্ষ করিনি।


 


উত্তর

ক) এতে চিন্তিত হওয়ার কী আছে। আপনি ফাতহুল বারীর সঙ্গে উমদাতুল কারী ও ফয়যুল বারী মুতালাআ করতে থাকুন। ইনশাআল্লাহ সব সমস্যা দূর হয়ে যাবে। তবে তুলনামূলক ও বিশ্লেষণমূলক দালিলিক আলোচনা সমৃদ্ধ কিতাবগুলো অধ্যয়নের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় যোগ্যতার তো আসলে কোনো বিকল্প নেই, তবে এ প্রসঙ্গে উস্তাদের নেগরানী ও রাহনুমায়ী ইনশাআল্লাহ আপনার জন্য ফলদায়ক হবে।

 

খ) এ ধরনের মাসাইল আপনি ফিকহে হানাফীর মুদাল্লাল কিতাব থেকেও অধ্যয়ন করবেন। এতে ওই মাসআলায় ইমামদের মধ্যে মতভেদ থাক বা না থাক বিষয়টা দলীল ও বিশ্লেষণসহ আপনার জানা হয়ে যাবে।

এই সংখ্যার অন্যান্য শিক্ষা পরামর্শসমূহ পড়ুন

advertisement
advertisement