মুনিবুর রহমান সাঈদ - যশোর

৫০৬২. প্রশ্ন

আমাদের এলাকায় অনেকেই পাট চাষ করেন। পাটগাছ কাটার পর তা থেকে আঁশ বের করার জন্য খালে বা পুকুরে এগুলো জাগ দিয়ে রাখা হয়। কিছুদিন পর পাটের জাগ পঁচে পানির রং পরিবর্তন হয়ে যায় এবং পানিতে কিছুটা দুর্গন্ধও সৃষ্টি হয়। প্রশ্ন হল, এই পানি দ্বারা  কি অযু-গোসল করা যাবে? এছাড়া পাট ধোয়ার সময় শরীরে বা কাপড়ে এই পানি লেগে থাকলে সে অবস্থায় নামায পড়া যাবে কি না?

উত্তর

খালে বা পুকুরে যদি পর্যাপ্ত পানি থাকে এবং পাট পঁচানোর পরও পানির তারল্য বহাল থাকে তাহলে পাট পঁচানোর কারণে পানির রং ও গন্ধ পরিবর্তন হয়ে গেলেও তা দ্বারা অযু-গোসল করা সহীহ হবে। এই পানি শরীর বা কাপড়ে লাগলে তা নিয়ে নামায পড়া সহীহ হবে। এ নিয়ে সংশয়ের দরকার নেই।

Ñফাতাওয়া খানিয়া ১/১৭; ফাতহুল কাদীর ১/৬৫; হালবাতুল মুজাল্লী ১/২৭৮; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১/৩৪১; তাবয়ীনুল হাকায়েক ১/৭৭; রদ্দুল মুহতার ১/১৮১

শেয়ার লিংক

আবদুল্লাহ মানসুর - খুলনা

৫০৬১. প্রশ্ন

কয়েকদিন আগে আমি খুব অসুস্থ হয়ে পড়ি। আমাকে স্যালাইন দেওয়ার প্রয়োজন হয়েছিল। ডাক্তার আমার শরীরে স্যালাইন দেওয়ার আগে আমি অযু করে নিয়েছিলাম, যেন সময়মত নামায পড়ে নিতে পারি। তবে আমার হাতে সুচ ঢুকানোর পর স্যালাইন ছাড়তে কিছুটা বিলম্ব হয়। এ কারণে নলের ভেতর কিছুদূর পর্যন্ত রক্ত বেরিয়ে আসে। এরপর স্যালাইন ছাড়লে আবার তা শরীরের ভেতর চলে যায়। জানার বিষয় হল, ঐ দিন স্যালাইন চলা অবস্থায় উক্ত অযু দ্বারা আমি দুই ওয়াক্ত নামায পড়েছিলাম। ঐ নামাযের কী হুকুম?

উত্তর

শরীর থেকে গড়িয়ে পড়া পরিমাণ রক্ত বের হলে অযু নষ্ট হয়ে যায়। তাই প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে সুচ ঢুকানোর পর নলে কিছুদূর পর্যন্ত রক্ত বেরিয়ে আসার কারণে আপনার অযু ভেঙ্গে গিয়েছে। তখন অযু না করে যেই দুই ওয়াক্ত নামায আপনি পড়েছেন তা আদায় হয়নি। উক্ত নামায পুনরায় পড়ে নিতে হবে। ইবরাহীম নাখায়ী রাহ. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেনÑ

إذَا سَالَ الدّمُ نُقِضَ الْوُضُوءُ.

রক্ত বেরিয়ে তা গড়িয়ে পড়লে অযু নষ্ট হয়ে যায়। (মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, আসার ১৪৬৭)

Ñআলজামেউস সাগীর পৃ. ৬২; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১/২৪৫; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/১৫; হালবাতুল মুজাল্লী ১/৩৭০; ফাতাওয়া ওয়ালওয়ালিজিয়া ১/৪৭

শেয়ার লিংক