আবদুল্লাহ - ওয়েব থেকে প্রাপ্ত

৪০৩৬. প্রশ্ন

কোনো ব্যক্তি আত্মহত্যা করে মারা গেলে সেই মৃত ব্যক্তির জন্য তার আত্মীয়-স্বজনেরা দুআ করতে পারবে কি?

 

 

উত্তর

আত্মহত্যাকারীর জন্য দুআ করা যাবে। কেননাযত বড় গুনাহগারই হোক যদি সে ঈমান অবস্থায় মারা যায় তবে তার জন্য ইস্তিগফার করা জায়েয। তাই আত্মহত্যা কাবীরা গুনাহ হলেও ঐ ব্যক্তির জন্য দুআ করা যাবে। একটি হাদীসে আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রা. বলেন-

كُنَّا نُمْسِكُ عَنِ الاسْتِغْفَارِ لأَهْلِ الْكَبَائِرِ، حَتَّى سَمِعْنَا نَبِيَّنَا صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَقُولُ: إِنَّ اللَّهَ لا يَغْفِرُ أَنْ يُشْرَكَ بِهِ وَيَغْفِرُ مَا دُونَ ذَلِكَ لِمَنْ يَشَاءُ وَقَالَ: أَخَّرْتُ شَفَاعَتِي لأَهْلِ الْكَبَائِرِ مِنْ أُمَّتِي يَوْمَ الْقِيَامَةِ.

আমরা কবীরা গুনাহে লিপ্ত ব্যক্তিদের জন্য মাগফেরাতের দুআ করতাম না। পরে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে যখন শুনলাম- “আল্লাহ তাআলা তাঁর সাথে শরীক করাকে ক্ষমা করবেন না। শিরক ছাড়া যে কোনো গুনাহ যাকে ইচ্ছা ক্ষমা করে দিবেন। আর আমি উম্মতের মধ্যে কবীরা গুনাহে জড়িয়ে যাওয়া লোকদের জন্য আমার সুপারিশের ক্ষমতাকে জমা করে রেখেছি এরপর থেকে আমরা তাদের জন্য দুআ করতাম। (মুসনাদে বাযযারহাদীস ৫৮৪০মাজমাউয যাওয়ায়েদহাদীস ১৭৬০১)

অন্য এক হাদীসে এসেছেজাবির রা. থেকে বর্ণিততিনি বলেনযখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মদীনায় হিযরত করলেনতখন তুফাইল ইবনু আমর এবং তার গোত্রের একজন লোকও তাঁর সঙ্গে মদীনায় হিজরত করেন। কিন্তু মদীনার আবহাওয়া তাদের অনুকূল হয়নি। তুফাইল ইবনু আম্র রা.-এর সাথে আগত লোকটি অসুস্থ হয়ে পড়ল। রোগযন্ত্রণা বরদাশত করতে না পেরে তীর নিয়ে তার হাতের আঙুলগুলো কেটে ফেলল। এতে উভয় হাত থেকে রক্ত নির্গত হতে থাকে। অবশেষে সে মারা যায়।

তুফাইল ইবনু আম্র দাওসী রা. স্বপ্নে তাকে ভাল অবস্থায় দেখতে পেলেনকিন্তু তিনি তার উভয় হাত আবৃত দেখে তাকে জিজ্ঞেস করলেনতোমার রব তোমার সাথে কিরূপ ব্যবহার করেছেন?  সে বললআল্লাহর জন্য তাঁর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর কাছে হিজরত করার কারণে আমাকে ক্ষমা করে দিয়েছেন। তুফাইল রা. তাকে জিজ্ঞেস করলেনতোমার কী হয়েছে যেআমি তোমার হাত দুটি আবৃত দেখছিসে বললআমাকে বলা হয়েছে যেআমি তা দুরস্ত করব নাতুমি স্বেচ্ছায় যা নষ্ট করেছ। তুফাইল রা. নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর কাছে ঘটনাটি বর্ণনা করলেন। তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দুআ করলেনইয়া আল্লাহ! আপনি তার হাত দুটিকেও ক্ষমা করে দিন।

-সহীহ মুসলিম, হাদীস ১১৬

শেয়ার লিংক

শুভ্র - গুলশান, ঢাকা

৪০৩৫. প্রশ্ন

আমরা কয়েকজন বন্ধু মিলে মাঝে মাঝে মেসে দাবা খেলতাম। একদিন আমার এক বন্ধুর ভাই (যে মাদরাসায় পড়ে) আমাদেরকে দাবা খেলতে দেখে বলল, দাবা খেলা জায়েয নেই।

আমারা জানার বিষয় হল, এ ব্যাপারে ইসলামের হুকুম কী?

 


উত্তর

দাবা খেলা নাজায়েয। এক বর্ণনায় এসেছে,

عَنْ عَلِيٍّ رَضِيَ اللهُ عَنْهُ أَنَّهُ مَرَّ عَلَى قَوْمٍ يَلْعَبُونَ الشِّطْرَنْجَ فَقَالَ: مَا هَذِهِ التَّمَاثِيلُ الَّتِي أَنْتُمْ لَهَا عَاكِفُونَ؟ لَأَنْ يَمَسَّ جَمْرًا حَتَّى يُطْفَأَ خَيْرٌ لَهُ مِنْ أَنْ يَمَسَّهَا.

হযরত আলী রা. একবার দাবা খেলায় রত কিছু মানুষের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। তখন তাদের কে বললেনএই মুর্তিগুলো কীযাদের সামনে তোমরা বসে  আছোএগুলো স্পর্শ করার চেয়ে জলন্ত অঙ্গার নির্বাপিত হওয়া পর্যন্ত তাতে হাতে রেখে দেওয়া ভাল। -সুনানে কুবরাবাইহাকী ১০/২১২

আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা.-কে দাবা খেলা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বললেন,

هُوَ شَرٌّ مِنَ النَّرْدِ

সেটা নারদ (নামক খেলা) থেকে নিকৃষ্ট।

(প্রাগুক্ত)

আর নারদ সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন,

مَنْ لَعِبَ بِالنَّرْدِ فَقَدْ عَصَى اللَّهَ وَرَسُولَهُ

যে নারদ দ্বারা খেলল সে আল্লাহ ও তার রাসূলের নাফরমানি করল। -সুনানে আবু দাউদহাদীস ৪৯৩৮

মুসলমানদের জন্য এ ধরনের খেলা থেকে বিরত থাকা উচিত ।

-শরহু মুখতাসারিত তহাবী ৮/৫৪৪; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৮/১৯৪; আলবাহরুর রায়েক ৮/২০৭; আদ্দুররুল মুখতার ৬/৩৯৪

শেয়ার লিংক

আহমাদ আবদুল্লাহ - ওয়েব থেকে প্রাপ্ত

৪০৩৪. প্রশ্ন

১. যাকে দেখা নাজায়েয তার ছবিও কি দেখা নাজায়েয?

২. বিভিন্ন পণ্যের গায়ে নারীদের ছবি দেয়া থাকে। এগুলোর দিকে তাকানোর হুকুম কী?


 


উত্তর

১. হাঁযাকে দেখা নাজায়েয তার ছবি দেখাও নাজায়েয।

২. পণ্যের গায়ে নারীদের যে সব ছবি দেয়া থাকে সেগুলোর দিকে তাকানোও গুনাহ। তাই এগুলো থেকে দৃষ্টি হেফাযতের চেষ্টা করতে হবে। তবে অনিচ্ছা সত্ত্বেও হঠাৎ দৃষ্টি পড়ে গেলে গুনাহ হবে না। তবে এক্ষেত্রে দৃষ্টি পড়ার সাথে সাথে দৃষ্টি ফিরিয়ে নিতে হবে। এধরনের পণ্য ঘরে এমনভাবে রাখবে যেন ছবি দৃশ্যমান না থাকে। প্রয়োজনে ছবির মুখ কালি দিয়ে মুছে দিবেঅথবা অন্য কিছু দিয়ে ঢেকে দিবে।

প্রকাশ থাকে যেপণ্যের গায়ে এবং বিজ্ঞাপনে নারীর ছবি ব্যবহার করা হারাম। এতে যেমন নারীর অসম্মান হয় তেমনি এর কারণে বদনযরীর গুনাহও হয়। তেমনিভাবে পণ্যের গায়ে পুরুষের ছবি ব্যবহার করাও নাজায়েয।  এসব শরীয়ত পরিপন্থী ও কুরুচিপূর্ণ কাজ থেকে সকল মুসলমানদের বিরত থাকা আবশ্যক। -সহীহ মুসলিমহাদীস ২১৫৯মুসনাদে আহমাদহাদীস ২২৯৭৪রদ্দুল মুহতার ৬/৩৭২ইমদাদুল ফাতাওয়া ৪/২৬০

শেয়ার লিংক

মুহাম্মাদ জাহান উদ্দিন - মিরপুর, ঢাকা

৪০৩২. প্রশ্ন

আমাদের এলাকায় দুটি মসজিদ আছে। নিকটস্থ মসজিদে ঈদের দুটি জামাত হয়েছে। একটি ৭:৩০ মিনিটে, অপরটি ৮:৩০ মিনিটে।

আমরা সাত শরিকে কুরবানী দিয়েছি। এক শরিক দ্বিতীয় জামাতে নামায পড়েছে। আমাদের কথা ছিল সকলে প্রথম জামাতে নামায পড়ে এসে কুরবানীর পশু যবাই করব। সে অনুপাতে আমরা প্রথম জামাতে নামায পড়ে এসেই পশু যবাই করে দেই। পরে জানা গেল আমাদের এক শরিক তখনও ঈদের নামায পড়েনি। লোকজন বলছে শরিকের নামায পড়ার আগে কুরবানী করার কারণে আমাদের কুরবানী নাকি হয়নি। এখন আমাদের করণীয় কী?

 


উত্তর

লোকদের ঐ কথা ঠিক নয়। আপনাদের কুরবানী সহীহ হয়েছে। কারণ এলাকার কোনো স্থানে ঈদের নামায হয়ে গেলেই উক্ত এলাকাবাসীর জন্য কুরবানী করা জায়েয হয়ে যায়। এমনকি ঐ সময় যে নামায পড়েনি তারও কুরবানী সহীহ। তাই প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে যেহেতু এলাকার ঈদগাহে নামায হয়েছে সুতরাং কোনো একজন শরিকের নামায পড়া না হলেও সকলের কুরবানী সহীহ হয়েছে।

-বাদায়েউস সনায়ে ৪/২১১; আদ্দুররুল মুখতার ৬/৩১৮; তাবয়ীনুল হাকায়েক ৬/৪৭৭

শেয়ার লিংক

সারোয়ার হোসেন - সিরাজগঞ্জ

৪০৩১. প্রশ্ন

আমার দুই ছেলে ও এক মেয়ের জন্য একটি গরু দিয়ে আকীকা করতে চাচ্ছি। পরিবারে অনেকে সংশয় প্রকাশ করে বলছে, গরু দিয়ে আকীকা শুদ্ধ হবে কি না? আমার জানার বিষয় হল, গরু দিয়ে কি আকীকা করা জায়েয আছে? বিস্তারিত জানাবেন।

 


উত্তর

হ্যাঁ। গরুমহিষ ও উট দ্বারাও আকীকা করা জায়েয আছে। হযরত আনাস রা. উট দ্বারা সন্তানদের আকীকা করেছেন। -তবারানীকাবীরহাদীস ৬৮৫মাজমাউয যাওয়াইদ ৪/৯৪মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবাহাদীস ২৪৭৫৫

বাকি থাকলো যেপ্রত্যেক সন্তানের জন্য একেকটি পশু দ্বারা আকীকা করা হবেনা কয়েকজনের জন্য একটি গরু-মহিষ দ্বারা আকীকা করলেও তা আদায় হয়ে যাবে এটি একটি ইজতেহাদী মাসআলা। কোন কোন আলেমের মতে কুরবানীর মত আকীকাও কয়েকজনের জন্য একটি গরু বা মহীষ দ্বারা করা যাবে।

উল্লেখ্যগরু-মহিষ দ্বারা আকীকা করা জায়েয হলেও ছাগল দ্বারা আকীকা করা উত্তম। কেননা ছাগল দিয়ে আকীকা করার কথা হাদীস শরীফে বিশেষভাবে বর্ণিত  হয়েছে।

উম্মে কুরয ও আবু কুরয থেকে বর্ণিত আছেতারা বলেন,

نَذَرَتِ امْرَأَةٌ مِنْ آلِ عَبْدِ الرَّحْمَنِ بْنِ أَبِي بَكْرٍ إِنْ وَلَدَتِ امْرَأَةُ عَبْدِ الرَّحْمَنِ نَحَرْنَا جَزُورًا، فَقَالَتْ عَائِشَةُ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا: لَا بَلِ السُّنَّةُ أَفْضَلُ عَنِ الْغُلَامِ شَاتَانِ مُكَافِئَتَانِ، وَعَنِ الْجَارِيَةِ شَاةٌ.

আবদুর রহমান ইবনে আবু বকর এর বংশের এক মহিলা এই বলেছিলেন যেআবদুর রহমানের স্ত্রী সন্তান প্রসব করলে আমরা একটি উট যবাই করব। তখন আয়েশা রা. বললেননাবরং সুন্নাহর অনুসরণ উত্তম। ছেলের জন্য উপযুক্ত দুটি ছাগল আর মেয়ের জন্য একটি ছাগল। -মুসতাদরাকে হাকেমহাদীস ৭৬৬৯

হযরত উম্মে কুরয রা. বলেনরাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে আকীকা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন,

عَنِ الغُلَامِ شَاتَانِ، وَعَنِ الأُنْثَى وَاحِدَةٌ

পুত্রসন্তানের পক্ষ থেকে দুটি ছাগল আর কন্যাসন্তানের পক্ষ থেকে একটি ছাগল যবাই করবে। (জামে তিরমিযী ১/১৮৩)

-মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস ২৪৭২৫; ইলাউস সুনান ১৭/১১৭; ফাতহুল বারী ৯/৫০৭; আলমাজমূ শরহুল মুহাযযাব ৮/৪৩১

শেয়ার লিংক

তাহমীদ - ত্রিশাল, মোমেনশাহী

৪০৩০. প্রশ্ন

এ বছর কোনো এক কারণে আমাদের কুরবানী বিলম্বিত হয়ে যায়। কুরবানীর ২য় দিন মাগরিবের পর আমরা কুরবানী করি। প্রশ্ন হল, রাতে কুরবানী করা সহীহ কি না? যদি সহীহ না হয় তাহলে এখন আমদের করণীয় কী?


উত্তর

দশ যিলহজ্ব ঈদের নামাযের পর থেকে বার তারিখ সূর্যাস্ত পর্যন্ত দিনে ও রাতে যে কোনো সময় কুরবানী করা সহীহ। আপনাদের কুরবানীও সহীহ হয়েছে।

অবশ্য পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা না থাকলে রাতে কোনো পশু যবাই করা অনুত্তম। কারণ অন্ধকারে করলে যবাইয়ে ভুলত্রুটি হতে পারে। পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা থাকলে রাতে যবাই করা দোষণীয় নয়।

-কিতাবুল আছল ৫/৪১২; মাবসূত, সারাখসী ১২/১৯; বাদায়েউস সানায়ে ৪/১৮৮; আলমুহীতুল বুরহানী ৮/৪৬৩; আদ্দুররুল মুখতার ৬/৩২০

শেয়ার লিংক

মুহাম্মাদ ইসহাক আনোয়ার - ওয়েব থেকে প্রাপ্ত

৪০২৯. প্রশ্ন

আমার একটি ছেলে জন্মের সতের দিন পরে মারা গেছে। এখন আমি তার আকীকা করতে চাই। এতে শরীয়তের কোনো বাধা আছে কি না?

 


উত্তর

আকীকা মূলত জীবিত সন্তানের জন্য করা মুস্তাহাব। অবশ্য কোনো কোনো ফকীহ মৃত সন্তানের জন্য করার কথাও বলেছেন তাই আপনি চাইলে আপনার মৃত সন্তানের আকীকা করতে পারবেন। তবে সন্তান মারা যাওয়ার পর তার আকীকার বিষয়টি ততটা গুরুত্ব থাকে না।

-আলমাজমূ ৮/৪১২; আলমওসূআতুল ফিকহিয়্যাহ আলকুয়াইতিয়্যাহ ৩০/২৭৭; ফাতাওয়া রহীমিয়া ১০/৬২

শেয়ার লিংক

মুহাম্মাদ যামিনুর - কুড়িগ্রাম

৪০২৭. প্রশ্ন

অতীতে আমি অন্যের গাছের ডাব, পুকুরের মাছ ইত্যাদি চুরি করে খেয়েছি। আল্লাহর মেহেরবানীতে আমার ভেতর দ্বীনী বুঝ এসেছে। তাই জানতে চাচ্ছি, আমি চুরির এই গুনাহ থেকে কীভাবে পরিত্রাণ পেতে পারি এবং ঐ পাওনাগুলোর ব্যাপারে কী করতে পারি?

 


উত্তর

প্রশ্নোক্ত অবস্থায় আপনার কর্তব্য হলঐ সকল ফলমূল ও মাছ ইত্যাদির আনুমানিক ন্যায্য মূল্য সেগুলোর মালিককে পৌঁছে দেওয়া। মালিক জীবিত না থাকলে তার ওয়ারিশদেরকে দিতে হবে। আর যদি মালিক বা তার ওয়ারিশ জানা না থাকে তাহলে ঐ টাকা মালিকের পক্ষ থেকে ফকীর-মিসকীনকে সদকা করে দিতে হবে ।

আর সর্বাবস্থায় আল্লাহ তাআলার দরবারে তওবা-ইস্তিগফার করতে হবে। 

-মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস ২৩৫৯৪; শরহুল মাজাল্লাহ ১/২৬৪; বাদায়েউস সানায়ে ৬/৪৪; আদ্দুররুল মুখতার ৪/২৮৩, ৬/১৮৩; আলইখতিয়ার ২/৫৬৪

শেয়ার লিংক

আব্দুল্লাহ আল আসিফ - মিয়াপাড়া, কুমিল্লা

৪০২৬. প্রশ্ন

পূর্বকথা : মাসআলাটি জানা আমাদের জন্য জরুরি হয়ে পড়েছে। আমর চাচা ও আমরা কয়েক বন্ধু হালাল হারাম বিবেচনা না করে সংস্থাটির সাথে জড়িয়ে পড়ি এবং আমাদের কারণে আরো কয়েকজন বিষয়টির সাথে যুক্ত হয়। তাই মাসআলাটি যত দ্রুত সম্ভব জানা জরুরি।

আমি যে কোম্পানির কথা বলছি তার নাম তিয়ানশি। কোম্পানিটি চায়নার। তারা দুটি বিষয় নিয়ে কাজ করে :

১. সেবা

২. ব্যবসা

১. সেবা : মানুষকে সুস্থ রাখার জন্য কোম্পানিটির রয়েছে কয়েক শত পণ্য। যা বাস্তবিক পক্ষেই মানুষের জন্য উপকারী এবং কার্যকরী। এসব পণ্য দিয়েই এর ব্যবসা সঞ্চালিত হয়।

২. ব্যবসা : তিয়ানশির ব্যবসা হচ্ছে নেটওয়ারর্কিং সিস্টেমে। অর্থাৎ আমি সুস্থ থাকার জন্য সর্বপ্রথম ৩০০ ডলারের (২৪০০০ টাকা) পণ্য ক্রয় করে ৩* (three stars) অর্জন করব। তারপর আমি কোম্পানির যেসব পণ্য ক্রয় করব তা থেকে ঐ পণ্যের মূল্যের ২০% হারে ছাড় পাব। নিয়মটা ঠিক এরকম, আমি নির্দিষ্ট দামেই পণ্য কিনব। তবে পরবর্তীতে তা থেকে মূল্যের ২০% আমার ব্যাংক একাউন্টে চলে আসবে। আমার মাধ্যমে অন্য কেউ ক্রয় করলেও ঠিক এ রকম। এরপর আমি ৪ জনকে ৩* বানাব। আর তাদের থেকে নির্দিষ্ট পয়েন্ট পেয়ে আমি হয়ে যাব ৪* (four stars) এতে আমি সরাসরি যা কিনব তা থেকে পাব ২৪%। আর আমি যাদেরকে নিয়োগ দিয়েছি তাদের ক্রয়কৃত পণ্যের মূল্য থেকে পাব ৪%। এভাবে আমার ঐ ৪ জন ৪* হয়ে গেলে আমি হব ৫*। পণ্যের মূল্যের ২৪% লাভ পাব। আর আমার নিচের লোকদের থেকে পাব ৪% ক্রমান্বয়ে বাড়তে বাড়তে এক সময় তা ৪০% পর্যন্ত যায়। আর আমি কাজ করি না করি, জানি বা না জানি আমার নিচে যত শত শত হাজার হাজার লোক থাকবে তাদের কাছ থেকে ৪% মূল্যের দাম থেকে ওদের ভাষ্যমতে একজন ব্যক্তি ২০% থেকে ৪০% পর্যন্ত যে লাভটা পাবে সেটা হচ্ছে অন্যান্য কোম্পানি মধ্যস্তা অথবা শোরুম, টিভিতে এ্যাড, এজেন্ট, সাব এজেন্টের মত ৬/৭ টি হাত বদল হতে হতে পণ্যের দাম দ্বীগুণ অথবা তিনগুণ বেড়ে যায়। ওদের এসব মধ্যস্থতা নেই, যার ফলে ঐ বেঁচে যাওয়া টাকা থেকে তারা কোম্পানির সদস্যদের দেয়। এখন আমার প্রশ্ন হল :

১. এই সিস্টেম/পদ্ধতিতে ব্যবসা কি জায়েজ। যদি জায়েজ না হয় তবে তা কেন? (দলিলসহ)

২. যদি জায়েয না-ই বা হয় তবে আমরা যে এতদিন এর থেকে লভ্যাংশ পেয়ে এসেছি তার জন্য বর্তমানে কী করা?

৩. যদি আমরা ব্যবসা না করে ওদের কাছ থেকে পণ্য কিনি তাহলে এর বিধান কি?

 


উত্তর

১. প্রচলিত এমএলএম পদ্ধতির কারবার জায়েয নয়। প্রশ্নের বিবরণ অনুযায়ী তিয়ানশি কোম্পানি যেহেতু এমএলএম অর্থাৎ মাল্টি লেভেল মার্কেটিং পদ্ধতিতে পরিচালিত তাই এই পদ্ধতিতে ব্যবসা করা নাজায়েয। এমএলএম পদ্ধতি নাজায়েয হওয়ার মৌলিক ও শাখাগত অনেক কারণ রয়েছে। তন্মেধ্যে গারারশ্রমবিহীন পারিশ্রমিকএক চুক্তির সাথে আরেক চুক্তি শর্তযুক্ত হওয়াঅযাচিত মধ্যস্বত্ব ভোগ ও দালালদের অতিরঞ্জিত কথা বলে মানুষকে প্রভাবিত করা অন্যতম। সুতরাং উক্ত কোম্পানীর সাথে ব্যবসায় জড়িত হওয়া জায়েয হবে না। এ পদ্ধতির মার্কেটিংয়ের খারাবী ও নাজায়েযের দলীলসমূহ মারকাযুদ দাওয়াহ আলইসলামিয়া কর্তৃক প্রকাশিত মাসিক আল কাউসারের ২০১১ সালের জানুয়ারীফেব্রুয়ারি ও মার্চ সংখ্যায় বিস্তারিত লেখা হয়েছে। প্রয়োজনে আলকাউসার দপ্তর থেকে সংগ্রহ করে সেগুলো পড়ে নিতে পারেন।

২. যেহেতু এই পদ্ধতির ব্যবসা সম্পূর্ণ নাজায়েযতাই এ থেকে অর্জিত লভ্যাংশও হালাল নয়। সুতরাং এ পর্যন্ত যত টাকা কমিশন পেয়েছেন তা সওয়াবের নিয়ত ছাড়া গরীব মিসকীনদেরকে সদকা করে দিতে হবে।

৩. এ ধরনের কোম্পানীর পণ্য নিজে পরিবেশক হওয়ার উদ্দেশ্য না থাকলেও কোনো পরিবেশকের মাধ্যমে কেনা বৈধ নয়। কেননাএতে নিজে ব্যবসায় জড়িত না হলেও নেটে অবস্থিত অন্যান্য লোকের এবং কোম্পানীর অবৈধ ব্যবসায় সহায়তা করা হয়।

-সূরাতুন নিসা (৪) : ২৯; সহীহ মুসলিম, হাদীস ১৪১৩, ১৫২১; মুসনাদে আহমাদ, হাদীস ৩৭৮৩; আহকামুল কুরআন, জাসসাস ২/১৭২

শেয়ার লিংক

ফখরুল হাসান - শাহরাস্তি, চাঁদপুর

৪০২৫. প্রশ্ন

কেউ মারা গেলে মাদরাসা থেকে ছাত্রদের এনে কুরআন খতম করিয়ে টাকা দেওয়া হয়। এটি কি জায়েয?

 


উত্তর

ঈসালে সওয়ারেব উদ্দেশ্যে কুরআন খতম করিয়ে বিনিময় দেয়া নেয়া নাজায়েয। হাদীস শরীফে এসেছেআব্দুর রহমান বিন শিবল রা. বলেনআমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি যে,

اقْرَءُوا الْقُرْآنَ، وَلَا تَغْلُوا فِيهِ، وَلَا تَجْفُوا عَنْهُ، وَلَا تَأْكُلُوا بِهِ، وَلَا تَسْتَكْثِرُوا بِهِ.

তোমরা কুরআন পড়। তবে তাতে বাড়াবাড়ি করো না। এবং তার প্রতি বিরূপ হয়ো না। এবং কুরাআনের বিনিময়ে কিছু ভক্ষণ করো না। এবং এর দ্বারা সম্পদ বৃদ্ধি করো না।-মুসনাদে আহমাদহাদীস ১৫৫২৯

আরেক বর্ণনায় এসেছেহযরত ইমরান বিন হুসাইন রা. থেকে বর্ণিত তিনি বলেনআমি নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি,

اقْرَءُوا الْقُرْآنَ،وَاسْأَلُوا اللهَ بِهِ؛فَإِنَّ مِنْ بَعْدِكُمْ قَوْمًا يَقْرَءُونَ الْقُرْآنَ يَسْأَلُونَ النَّاسَ بِهِ.

তোমরা কুরআন পড়ো এবং বিনিময় আল্লাহ তাআলার কাছে চাও। তোমাদের পরে এমন জাতি আসবে যারা কুরআন পড়ে মানুষের কাছে চাবে। -মুসনাদে আহমাদহাদীস ১৯৯১৭

অন্য আরেক বর্ণনায় এসেছে তাবেয়ী যাযান রাহ. বলেন,

مَنْ قَرَأَ الْقُرْآنَ يَأْكُلُ بِهِ جَاءَ يَوْمَ الْقِيَامَةِ وَوَجْهُهُ عَظْمٌ لَيْسَ عَلَيْهِ لَحْمٌ.

যে ব্যক্তি কুরআন পড়ে মানুষ থেকে এর বিনিময় গ্রহণ করে সে যখন হাশরের মাঠে উঠবে তখন তার চেহারায় কোনো গোশত থাকবে না। শুধু হাড্ডি থাকবে। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবাহাদীস ৭৮২৪

তাই ঈসালে সওয়াবের উদ্দেশ্যে বিনিময় দিয়ে কুরআন খতম করালে বিনিময় দাতা এবং গ্রহীতা উভয়ের গুনাহ হবে। এবং এর দ্বারা মৃত ব্যক্তির কোনো সওয়াব হবে না।

-আলমুহীতুল বুরহানী ২৩/৪১; রদ্দুল মুহতার ৬/৫৬

শেয়ার লিংক

আবদুল্লাহ - মতিঝিল, ঢাকা

৪০২৪. প্রশ্ন

আমরা কয়েক বন্ধু মিলে প্রায় পাঁচ বছর পূর্বে যৌথ মূলধন দিয়ে একটি ব্যবসা শুরু করেছি। কথা হয়েছে দশ বছর

পূর্ণ হওয়ার পূর্বে আমরা কেউ এই ব্যবসা থেকে আলাদা হবো না। কিন্তু আমাদের একজন এখনই আলাদা হয়ে যেতে চাচ্ছে। ব্যবসাটির পরিচালনায় তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।  এ অবস্থায় সে আলাদা হলে ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশংকা রয়েছে। তাই জানার বিষয় হল, আমাদের সম্মতি ব্যতীত সে ব্যবসা থেকে আলাদা হওয়ার অধিকার রাখে কি না?

 


উত্তর

একটি নির্ধারিত মেয়াদ ঠিক করে যৌথ মূলধনী কারবার শুরু করা হলেও  কোনো অংশিদার চাইলে অন্যদের সম্মতিক্রমে মেয়াদ শেষ হওয়ার পূর্বে আলাদ হয়ে যেতে পারবে। এমনিভাবে ওযরবশত অন্যদের সম্মতি ছাড়াও আলাদা হতে পারবে। তবে ওযর না থাকলে চুক্তির সময়ের চুক্তিকৃত মেয়াদকালের পূর্বে আলাদা হওয়া উচিত নয়। কোনো মুসলমানের জন্য বিনা ওযরে কৃত ওয়াদা বা চুক্তি ভঙ্গ করা ঠিক নয়।

অতএব প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে ঐ ব্যক্তির যদি কোনো ওযর থাকে তাহলে সে এখন আলাদা হয়ে যেতে পারবে। অন্যথায় তার উচিত- মেয়াদ পূর্ণ করা। এর পরও সে চলে যেতে চাইলে অংশিদারগণ তাকে থাকতে বাধ্য করতে পারবে না।

-বাদায়েউস সনায়ে ৫/১০৫; ফাতহুল কাদীর ৫/৪১৩; রদ্দুল মুহতার ৪/৩২৮

শেয়ার লিংক

মুহাম্মাদ জুনাইদ - উলুকান্দি মাদরাসা, সোনারগাঁ

৪০২৩. প্রশ্ন

 

 

ক. ট্রেনে চলাচলকালে অনেক সময় টিকেট না থাকলে ড্রাইভার কিংবা টিটিকে কিছু টাকা দিলে যাওয়ার ব্যবস্থা হয়। জানার বিষয় হল, এটা কি জায়েয?

খ. প্রচলিত ধারার ব্যাংকে চাকুরী করা কি জায়েয?

 


 

 

উত্তর

ক) টিকেট নেওয়া ব্যতীত ট্রেনে যাতায়াত করা বৈধ নয়। নিয়মতান্ত্রিক রশিদ বা টিকেট গ্রহণ না করে ড্রাইভার কিংবা টিটিকে টাকা দিলেও তা ভাড়া হিসেবে গণ্য হবে না। বরং সেটা হবে ঘুষ। যা সম্পূর্ণ নাজায়েয। সুতরাং এভাবে কখনো ট্রেনে ভ্রমন করে থাকলে সমপরিমাণ মূল্যের সিট বিহীন টিকেট কেটে ছিড়ে ফেলবেন। এতে আপনি উক্ত অপরাধ থেকে মুক্ত হতে পারবেন। -জামে তিরমিযীহাদীস ১৩৩৭ফাতহুল কাদীর৬/৩৫৯তাফসীরে মাযহারী ৩/১৪৫ইমদাদুল ফাতাওয়া ৩/৪৪৫

খ. প্রচলিত ধারার ব্যাংকের চাকরি সুদী কাজে সরাসরি সহযোগিতার শামিল। এতে চাকরি করলে শ্রমও হারাম এবং আয়ও হারাম হবে। মুসলমানদের জন্য এ ধরনের চাকরি থেকে বিরত থাক আবশ্যক। -সহীহ মুসলিমহাদীস ১৫৯৮আলআশবাহ ওয়াননাযায়ের ৩/২৩৪

 

শেয়ার লিংক

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক - ওয়েব থেকে প্রাপ্ত

৪০২২. প্রশ্ন

আমাদের পার্শ্ববর্তী এলাকায় একটি মসজিদ আছে। যার নাম দেয়া হয়েছে রুস্তুমিয়া জামে সমজিদ। যা জমিদাতার নাম, এখন কিছু মানুষ বলছে এটা আল্লাহ তাআলার ঘর। আর আল্লাহর ঘর দুনিয়ার কোনো মানুষের নামে রাখা যাবে না। যদি রাখা হয় তাহলে ঐ মসজিদে নামায সহীহ হবে না। এ নিয়ে মসজিদে খুব ফেৎনা শুরু হয়েছে। এখন প্রশ্ন হল, মসজিদ মানুষের নামে নামকরণ করা জায়েয আছে কি না? দলিলসহ জানালে এই ফেৎনা নিরসন হবে।

 


উত্তর

সাহাবতাবেয়ী বা কোনো আল্লাহর ওলীর নামে মসজিদের নামকরণ করা জায়েয। যেমন সমজিদে আবু বকর রা.মসজিদে বেলাল রা.ইত্যাদি। তবে মসজিদের জায়গা বা মসজিদে অর্থ দান করে দাতার নামে মসজিদের নামকরণ করা উচিত নয়। কারণ এতে এখলাস নষ্ট হওয়া ও রিয়া তথা লোক দেখানোর আশঙ্কা থাকে। আর যদি এমনটি লোক দেখানো বা রিয়ার উদ্দেশ্যেই করা হয়ে থাকে তবে তো কাজটি সম্পূর্ণ নাজায়েয হবে। এবং দানের সওয়াবও নষ্ট হয়ে যাবে। অবশ্য এভাবে কোনো মসজিদের নাম রাখা হলেও তা মসজিদ বলেই গণ্য হবে এবং সেখানে নামাযসহ সকল ইবাদাত বন্দেগী করা যাবে।

-সহীহ বুখারী, হাদীস ৪২০; ফাতহুল বারী ১/৬১৪; উমদাতুল কারী ৪/১৪৮; আদ্দুররুল মুখতার ৬/৪২৫

শেয়ার লিংক

শরীফ জামী - ওয়েব থেকে প্রাপ্ত

৪০২১. প্রশ্ন

এক লোক মান্নত করলো, আল্লাহ যদি এই অসুস্থ গরুটি ভাল করে দেন তাহলে তা সদকা করে দিবো। এখন গরুটি সুস্থ। এখন এই গরুটি সদকা করতে হবে নাকি বিক্রি করে একাধিক মাদরাসার গোরাবা ফান্ডে দান করা যাবে?

 


উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে সরাসরি গরুটিই সদকা করে দেওয়া উত্তম। তবে সেটি বিক্রি করেও এর মূল্য গরীব মিসকীনকে সদকা করতে পারবে। আবার বিভিন্ন গোরাবা ফাণ্ডেও দিতে পারবে।

-আলবাহরুর রায়েক ৫/২৪৭, ২৯২; আলমুহীতুল বুরহানী ৬/৩৫৪; রদ্দুল মুহতার ৩/৭৪০; ইমদাদুল আহকাম ৩/৩১

শেয়ার লিংক

হাবিব আহসান - চাষাড়া, নারায়ণগঞ্জ

৪০২০. প্রশ্ন

 

 

গত কয়েক মাস আগে আমার  স্ত্রী মারা যায়। এরপর আমি নতুন বিবাহ করি। জানতে চাই, আমার প্রথম স্ত্রীর মা তথা প্রথম শাশুড়ির সাথে এখন কি দেখা করতে পারব? সঠিক উত্তর জানালে উপকৃত হব।

 


 

 

উত্তর

স্ত্রী বেঁচে থাক বা না থাক সর্বাবস্থায় স্ত্রীর মা মুহাররামাতের  অন্তর্ভুক্ত। তাই আপনার ঐ শাশুড়ির সাথে এখনও দেখা করতে পারবেন।

-মুসান্নাফে আবদুর রাযযাক, হাদীস ১০৮২১; কিতাবুল আছল ৪/৩৬১; মাবসূত, সারাখসী ৪/১৯৯; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ২/৬; আদ্দুররুল মুখতার ৩/৩০

শেয়ার লিংক

শরীফুল ইসলাম - দাউদকান্দি, কুমিল্লা

৪০১৯. প্রশ্ন

আমি একটি মসজিদে ইমামতি করি। গত বছর আল্লাহর অশেষ মেহেরবানিতে আমি আমার ফরজ হজ্ব আদায় করেছি। এখন আমার মন চায় বারবার আল্লাহর ঘরের যিয়ারত করতে। কিন্তু পর্যাপ্ত টাকা না থাকায় তা পারছি না। এ বছর হজ্বের অর্ধেক টাকা তথা দেড় লক্ষ টাকার ব্যবস্থা হয়েছে। একজন মুসল্লী ভাই এটা জানতে পেরে আমাকে বললেন, ‘হুজুর ! আপনি আমার বৃদ্ধ বাবার পক্ষ থেকে বদলী হজ্ব করবেন। হজ্বের বাকী অর্ধেক টাকা তথা দেড় লক্ষ টাকা আমার বাবা আপনাকে দিবে। তিনি নিজে হজ্ব করতে অক্ষম। বর্তমানে একেবারে শয্যাশায়ী। তাই জানতে চাচ্ছি, এভাবে নিজের অর্ধেক এবং অন্যের অর্ধেক টাকা দিয়ে তার বদলী হজ্ব করা যাবে কি?

 

 

উত্তর

বর্তমানে দেড়লক্ষ টাকা দ্বারা হজ্বের যাতায়াত ও থাকার ন্যূনতম ব্যবস্থা হয়ে যায়। অন্তত অধিকাংশ খরচ তো হয়েই যায়। তাই এক্ষেত্রে আপনি স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজ থেকে বাকী টাকা খরচ করে বৃদ্ধ লোকটির পক্ষ থেকে বদলী হজ্ব করলে তা জায়েয হবে। এবং বৃদ্ধলোকের হজ্ব আদায় হয়ে যাবে।

-আলমাবসূত, সারাখসী ৪/১৪৭; ফাতহুল কাদীর ৩/৬৮; ফতাওয়া কাযীখান ১/৩১১; রদ্দুল মুহতার ২/৬০০; গুনয়াতুন নাসিক পৃ. ৩২৩

শেয়ার লিংক

ইমরান হোসাইন - গুলশান, ঢাকা।

৪০১৮. প্রশ্ন

গত রমযানে আমি ওমরা করেছি। আমি যখন ওমরার তাওয়াফ করছিলাম তখন মাতাফের এক পাশে এক ব্যক্তি আতরের বড় শিশি হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলো। লোকদেরকে আতর মেখে দিচ্ছিল। আমার শরীরেও আতর মেখে দেয়। আমার হাতে ও কাঁধে অনেকটা আতর লাগে। কাপড়েও কিছু আতর লাগে। তাওয়াফ শেষ করে শরীর ও কাপড়ের যে অংশে আতর লেগেছিল সে অংশ ভালোবাভে ধুয়ে ফেলি।

মুফতী সাহেবের কাছে প্রশ্ন হল, এভাবে অনিচ্ছাকৃত অন্য আরেকজন আমার শরীরে আতর লাগিয়ে দেয়ার কারণে আমার উপর

কোনো জরিমানা ওয়াজিব হয়েছে কি না?


 

উত্তর

ইহরাম অবস্থায় নিষিদ্ধ বিষয়গুলো অনিচ্ছাকৃতভাবে ঘটলেও জরিমানা ওয়াজিব হয়। তাই সুগন্ধির পরিমাণ যদি বেশি হয় তবে দম ওয়াজিব হবে। আর কম হলে জরিমানাস্বরূপ সদকা দিতে হবে।

প্রকাশ থাকে যে, সদাকাতুল ফিতর সমমূল্যের টাকা সদকা করতে চাইলে নিজ দেশের ফকীর-মিসকিনকে দিতে পারেবন। আবার হারামের ফকীরদরেও দিতে পারবেন।

উল্লেখ্য, ঘটনাটি যেহেতু অনিচ্ছাকৃত ঘটেছে তাই ঐ ঘটনার জন্য আপনি গুনাহগার হবেন না।

-আলমাবসূত, সারাখসী ৪/১২২; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৪০-১৪১; মানাসিক, মুল্লা আলী আলকারী পৃ. ৩১২

শেয়ার লিংক

ইমরান হুসাইন - কাজলা, যাত্রাবাড়ি

৪০১৭. প্রশ্ন

গত বছর একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমি রমযানের শেষ দশকে ইতিকাফের মানত করি। কিন্তু অসুস্থতার দরুণ গতবার তা করতে পারিনি। এবার রমযানে আমি ইতিকাফ করেছি। এর দ্বারা কি আমার সেই মানত পুরা হয়েছে? নাকি সেই ইতিকাফ ভিন্ন করে কাযা করতে হবে?

উত্তর

পরবর্তী রমযানে ইতিকাফ করার দ্বারা আপনার উক্ত মানত পুরো হয়নি। কারণ নির্দিষ্ট রমযানে যেহেতু আপনি ইতিকাফ করতে পারেননি তাই তা কাযা হয়ে গেছে। আর কাযা ইতিকাফ রমযানের বাইরে পৃথক রোযা রেখে আদায় করতে হয়।

অতএব আপনাকে ঐ মানত পুরো করার জন্য রমযান ছাড়া অন্য মাসে রোযা রেখে আদায় করতে হবে।

-মাবসূত, সারাখসী ৩/১২১; বাদায়েউস সানায়ে ২/২৭৯; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/৩৮৩; আদ্দুরুল মুখতার ২/৪৪৩

শেয়ার লিংক

ফখরুল হাসান - শাহরাস্তি, চাঁদপুর

৪০১৬. প্রশ্ন

আমার বাড়ীতে ঘর করা জরুরি। তাই ঘর করার জন্য আমি কিছু কিছু করে টাকা জমাচ্ছি। এখন আমার ঘর করতে চার থেকে পাঁচ লাখ টাকার মত লাগে। কিন্তু আমি গত দুই বছরে প্রায় দেড় লাখ টাকার মত জমিয়েছি। ইচ্ছা হল দুই বা আড়াই লাখ টাকা হলে ঘর করা শুরু করবো, বাকি নগদে মিলিয়ে। এখন প্রশ্ন হল, আমার এই জমাকৃত টাকার উপর কি যাকাত দিতে হবে?

 

উত্তর

জমাকৃত টাকাগুলো যদি নেসাব পরিমাণ হওয়ার পর বছর অতিক্রান্ত হওয়ার আগেই এর  দ্বারা নির্মাণ সামগ্রী কিনে ফেলা হয় তাহলে তার আর যাকাত দিতে হবে না। তবে নেসাবের উপর বছর পুরা হওয়ার কাছাকাছি হয়ে গেলে যাকাত থেকে বাঁচার জন্য এমনটি করা হলে তা অন্যায় হবে। আর বাড়ী বানানোর জন্য জমাকৃত টাকা নেসাব পরিমান হলে এবং বছর অতিক্রান্ত হয়ে গেলে এর যাকাত দিতে হবে। বছর অতিক্রান্ত হওয়া পর তা খরচ করে ফেললেও ঐ যাকাত মাফ হবে না।

-বাদায়েউস সনায়ে ২/১০১; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৯৮; আলবাহরুর রায়েক ২/২২৬

শেয়ার লিংক

আমীমুল ইহসান - রাঙ্গামাটি, চট্টগ্রাম পার্বত্য জেলা

৪০১৫. প্রশ্ন

আমার এক মাসের এক দুগ্ধপোষ্য সন্তান রয়েছে। তার মা শারীরিকভাবে দুর্বল। রোযা অবস্থায় দুধ খাওয়ালে তার রোযা রাখতে খুব কষ্ট হয়। মাঝে মাঝে সন্তান দুধই পায় না। মাঝে দুটি রোযা রেখে পরে ভেঙ্গে ফেলেছে। ডাক্তারের সাথে এ বিষয়ে কথা  বললে তিনি বাচ্চাকে সাগু ও সেরেলাক খাওয়ানোর পরামর্শ দেন। কিন্তু বাচ্চা এগুলো খেতে চায় না। এদিকে তার মা রোযাও রাখতে চায় ওদিকে সন্তানের সমস্যা হয়। 

এক্ষেত্রে শরয়ী সমাধান জানালে আমরা কৃতজ্ঞ হবো। আর যে দুটি রোযা রেখে ভেঙ্গে ফেলেছে তার কাযা কাফফারা দিতে হবে কি না?


 

 

উত্তর

সন্তানের দুগ্ধদানের প্রয়োজনে তার মা রোযা ভাঙ্গতে পারবে। তবে রমযানের যে কয়টি রোযা রাখা না হয় তা পরবর্তীতে কাযা  করতে হবে। কাফফারা আদায় করতে হবে না।

এক সফরে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হযরত আনাস ইবনে মালেক রা.-কে কিছু খেতে দিলে তিনি বললেন, আমি রোযাদার। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন,

اجْلِسْ أُحَدِّثْكَ عَنِ الصَّوْمِ أَوِ الصَّائِمِ، إِنَّ اللهَ عَزَّ وَجَلَّ وَضَعَ عَنِ الْمُسَافِرِ شَطْرَ الصَّلَاةِ، وَعَنِ الْمُسَافِرِ وَالْحَامِلِ وَالْمُرْضِعِ الصَّوْمَ أَوِ الصِّيَامَ.

তুমি বসো, আমি তোমাকে রোযা ও রোযাদার সম্পর্কে কিছু বলব, আল্লাহ তাআলা মুসাফিরের অর্ধেক নামায কমিয়ে দিয়েছেন এবং মুসাফির, গর্ভবর্তী ও দুগ্ধদানকারিনীর জন্য রোযায় ছাড় দিয়েছেন। -মুসনাদে আহমদ, হাদীস ১৯০৪৭

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত তিনি বলেন,

تُفْطِرُ الْحَامِلُ وَالْمُرْضِعُ فِي رَمَضَانَ، وَتَقْضِيَانِ صِيَامًا، وَلَا تُطْعِمَانِ.

গর্ভবর্তী ও দুগ্ধদানকারিনী রমযানের রোযা ভাঙ্গতে পারবে। তবে পরে তা কাযা করে নিবে। রোযার বদলে (মিসকীনদেরকে) খাওয়াবে না। (মুসান্নাফে আব্দুর রাযযাক, বর্ণনা ৭৫৬৪)

-ফাতাওয়া খানিয়া ১/২০২; ফাতহুল কাদীর ২/২৭২; রদ্দুল মুহতার ২/৪২২

শেয়ার লিংক

ইলয়াছ হাবীব - মধ্যবাড্ডা, ঢাকা

৪০১৪. প্রশ্ন

 আমাদের হাসপাতালের পাশেই মসজিদ। মসজিদ সংলগ্ন বড় মাঠ। হাসপাতালে প্রায়ই দু চার জন করে মারা যায়। ওয়ারিসগণ মসজিদ সংলগ্ন মাঠেই জানাযার এন্তেজাম করে। একাধিক জানাযা উপস্থিত হলে সময় স্বল্পতার করণে মাঝেমধ্যে একত্রে জানাযার নামায আদায় করা হয়। কিন্তু প্রতিবারেই মায়্যেতকে কীভাবে রাখতে হবে এ নিয়ে দ্বন্দ্ব লেগে থাকে। বিভিন্নজন বিভিন্ন মত দেয়। আমরা কোনো সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারি না। জানার বিষয় হল, একাধিক জানাযার ক্ষেত্রে মায়্যেতকে রাখার সঠিক পদ্ধতিটা কী? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

একত্রে একাধিক লাশের জানাযা আদায় করতে চাইলে লাশগুলোকে ইমামের বরাবর সামনে কিবলার দিকে সারিবদ্ধভাবে রাখাই উত্তম।

উল্লেখ্য, এক্ষেত্রে সকল লাশ যদি পুরুষ হয় তাহলে মর্যাদা ও বয়সের দিক থেকে যারা বড় হবে তাদেরকে ইমামের নিকটে রাখা হবে। আর পুরুষের সাথে যদি নারী ও শিশুর লাশও থাকে তাহলে ইমামের সামনে প্রথমে পুরুষের লাশ, তারপর শিশু অতপর নারীদেরকে রাখা হবে।

নাফে রাহ. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন,

عَنِ ابْنِ عُمَرَ، أَنَّهُ كَانَ إذَا صَلَّى عَلَى جِنَازَةِ رِجَالٍ وَنِسَاءٍ جَعَلَ الرِّجَالَ مِمَّا يَلِيهِ وَالنِّسَاءَ خَلْفَ ذَلِكَ مِمَّا يَلِي الْقِبْلَةَ.

আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা. যখন একাধিক মায়্যেতের জানাযা পড়াতেন আর নারী-পুরুষ একসাথে থাকত তখন তিনি আগে পুরুষের লাশ তার সামনে রেখে নারীদের লাশ তার পরে রাখতেন। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস ১১৬৮২

প্রকাশ থাকে যে, শরীয়তে এক মৃতের জন্য একবারই জানাযা পড়ার হুকুম এসেছে। এক মৃতের একাধিক জানাযা পড়া ঠিক নয়।

-কিতাবুল আসার ১/২৫৮; মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস : ১১৬৮৯; কিতাবুল আসল ১/৩৫০; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/৭৭; মাবসূত, সারাখসী ২/৬৫; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২২৪; আদ্দুররুল মুখতার ২/২১৯

শেয়ার লিংক

আবু নাসের - নোয়াখালী

৪০১৩ . প্রশ্ন

আমি মাঝেমধ্যে ফরয নামায একাকী পড়ার সময় তৃতীয় ও চতুর্থ রাকাতে ভুলক্রমে সূরা ফাতেহার সাথে অন্য সূরা মিলিয়ে ফেলি। এতে করে আমার নামাযে কোনো সমস্যা হবে কি?

 

 

 

 

উত্তর

ফরযের তৃতীয় ও চতুর্থ রাকাতে সূরা না মিলানোই সুন্নত। তাই ইচ্ছাকৃত সূরা মিলাবে না। ভুলে হয়ে গেলে অসুবিধা নেই। এ কারণে সাহু সিজদা আসবে না।

উল্লেখ্য, মনোযোগ সহকারে নামায পড়া উচিত। নামাযে প্রায় ভুল হওয়া উদাসীনতার লক্ষণ। এ ব্যাপারে সচেতন হওয়া কর্তব্য।

-আলমুহীতুল বুরহানী ২/৩১০; তাবয়ীনুল হাকায়েক ১/৪৭৪; আলবাহরুর রায়েক ১/২৯৬; শরহুল মুনইয়াহ ৩৩১; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১২৬; রদ্দুল মুহতার ১/৫১১

শেয়ার লিংক

আরেফীন মাহমুদ - লালমনিরহাট

৪০১২. প্রশ্ন

একদিন জুমার নামাযের আগে আমার রুমে পড়তে পড়তে ঘুম এসে যায়। সবাই মনে করেছে আমি মসজিদে গিয়েছি। সুতরাং কেউ আমাকে জাগায়নি। যখন আমি সজাগ হই তখন দ্রুত রওয়ানা দেই এবং নিয়ত করে বসা মাত্রই ইমাম সাহেব সালাম ফিরিয়ে দেন। আমি দাঁড়িয়ে মাসবুকের ন্যায় নামায পূর্ণ করি। জানতে চাই আমার ঐ জুমার নামায কি আদায় হয়েছে?

 

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে ইমামের সালাম ফিরানোর আগেই যেহেতু আপনি জুমার নামাযে শরীক হয়েছেন তাই আপনার জুমার নামায সহীহ হয়েছে। হযরত শুবা রাহ. বলেন,

سَأَلْتُ الْحَكَمَ، وَحَمَّادًا، عَنِ الرَّجُلِ يَجِيءُ يَوْمَ الْجُمُعَةِ قَبْلَ أَنْ يُسَلِّمَ الْإِمَامُ، قَالَا: يُصَلِّي رَكْعَتَيْنِ.

আমি হাকাম ও হাম্মাদ রাহ.-কে এমন ব্যক্তি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলাম, যে জুমার দিনে ইমামের সালাম ফিরানোর আগে (জুমার নামাযে) উপস্থিত হয়েছে। উত্তরে তারা বললেন, সে দুই রাকাত নামায আদায় করবে। (মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস ৫৩৯৮)

-মুসান্নাফে আবদুর রাযযাক, হাদীস ৪৫৭৮; আলমাবসূত, সারাখসী ২/৩৫; বাদায়েউস সনায়ে ১/৫৯৯; ফাতহুল কাদীর ২/৩৫; রদ্দুল মুহতার ২/১৫৭

শেয়ার লিংক

সাইফূল ইসলাম - ওয়েব সাইট থেকে প্রাপ্ত

৪০১১. প্রশ্ন

সেদিন এক ব্যক্তির মুখে শুনলাম, রমযান মাসে নাকি এমন একটি নামায আছে, যা আদায় করলে সারা জীবনের সকল কাযা নামায মাফ হয়ে যায়। হুযুরের কাছে জানতে চাই, সেটি কোন্ নামায? তা আদায়ের কী পদ্ধতি?

উত্তর

রমাযানে বিশেষ নামায পড়লে সারা জীবনের কাযা নামায মাফ হয়ে যায় এমন কথা সহীহ নয়। এটা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও মনগড়া কথা। কুরআন-হাদীসের কোথাও এমন কথা নেই। এ সম্পর্কে যে বর্ণনাটি উল্লেখ করা হয় তা বানোয়াট ও জাল। মোল্লা আলী ক্বারী রাহ. ঐ বর্ণনাটি উল্লেখ করে বলেন, ‘এটি সম্পূর্ণ বাতিল কথা। কেননা এটা উম্মাহ্র ঐক্যমত্যের পরিপন্থী। এমন কোনো ইবাদত নেই, যার দ্বারা অনেক বছরের কাযা মাফ হয়ে যায়। (আলমাওযুআতুল কুবরা, পৃষ্ঠা ২৪২) বরং অনেক হাদীসে সুস্পষ্ঠভাবে এসেছে যে, কারো কোনো নামায ছুটে গেলে তার কর্তব্য হল তা কাযা করা। যত ওয়াক্ত নামায ছুটবে প্রত্যেক ওয়াক্তের জন্য আলাদা কাযা আদায় করতে হবে।  এক হাদীসে আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন,

مَنْ نَسِيَ صَلاَةً فَلْيُصَلِّ إِذَا ذَكَرَهَا، لاَ كَفَّارَةَ لَهَا إِلَّا ذَلِكَ.

কারো যদি ভুলে কোনো নামায ছুটে যায় তাহলে যখন স্মরণ হবে তখন যেন সে তা আদায় করে নেয়। এর থেকে দায়মুক্তির ভিন্ন কোন কাফফারা নেই। -সহীহ বুখারী, হাদীস : ৫৯৭

অতএব এক নামায দ্বারাই জীবনের সকল কাযা মাফ হয়ে যাবে এমন ধারণা ভ্রান্ত ও হাদীস পরিপন্থী। এমন ধারণা পোষণ করা থেকে বিরত থাকা আবশ্যক।

শেয়ার লিংক

মাসউদ আহমাদ - ফেনী

৪০১০. প্রশ্ন

কয়েক দিন আগের কথা। বিতরের নামাযে দাঁড়ানো অবস্থায় আমি সন্দেহে পড়ে যাই যে, দ্বিতীয় রাকাতে আছি না তৃতীয় রাকাতে? কোনোটাই স্থির করতে পারছিলাম না। তখন ঐ রাকাতকে দ্বিতীয় রাকাত ধরেই নামায শেষ করেছি। তাই ঐ রাকাতে কুনূত না পড়ে পরের রাকাতে পড়েছি। এবং শেষ বৈঠকে সাহু সেজদা করেছি। এতে আমার নামায সহীহ হয়েছে কি ?

 

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে কোন্টি শেষ রাকাত সে বিষয়ে আপনি যেহেতু নিশ্চিত হতে পারছিলেন না, তাই আপনার জন্য উভয় রাকাতেই কুনূত পড়া উচিত ছিল। এবং প্রত্যেক রাকাতের পর বৈঠক করা কর্তব্য ছিল। এক্ষেত্রে যে কোনো রাকাতই শেষ রাকাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে আপনি যেহেতু সাহু সেজদা করেছেন তাই আপনার নমায সহীহ হয়ে গেছে।

-আলমুহীতুল বুরহানী ২/২৭২; আলবাহরুর রায়েক ২/৪১; শরহুল মুনয়া পৃ. ৪২১; রদ্দুল মুহতার ২/৯৪

শেয়ার লিংক

মিনহাজ মুনাওয়ার - ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম

৪০৩৩. প্রশ্ন

 

কুরবানীর দিন এলাকার লোকজন নিজ নিজ পশু যবাইয়ের জন্য আমার চাচাকে নিয়ে যায়। এখন তিনি বৃদ্ধ হয়ে গেলেও লোকজন তবুও আসে। চাচা তাদের মন রক্ষার্থে গেলেও একা যবাই করতে পারেন না। তাই আমাকে সাথে নিয়ে যান। চাচা বিসমিল্লাহ বলে একটু ছুরি চালিয়ে দিলে বাকিটুকু আমি করে দিই। জানার বিষয় হল, চাচার বিসমিল্লাহ পড়াই যথেষ্ট হবে? নাকি আমাকেও বিসমিল্লাহ পড়তে হবে?

 


 

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে আপনাকেও বিসমিল্লাহ পড়তে হবে। অন্যথায় যবাই সহীহ হবে না। কেননা এক্ষেত্রে আপনিও যবাইকারী। আর যবাইকারী একাধিক হলে প্রত্যেকেরই বিসমিল্লাহ বলা জরুরি। অবশ্য প্রথম জবাইকারী যদি জবাই সম্পন্ন করে ফেলেঅর্থাৎ স্বাশনালীখাদ্যনালী এবং দুই শাহরগের কোন একটি কেটে ফেলেএরপর দ্বিতীয় ব্যক্তি ছুরি চালায় সেক্ষেত্রে তার জন্য বিসমিল্লাহ পড়া জরুরি নয়। এক্ষেত্রে প্রথম ব্যক্তির দ্বারাই জবাই সম্পন্ন হয়ে যায়। সুতরাং পরবর্তীতে কেউ যদি ছুরি চালায় তাহলে জবাইকারীর অন্তর্ভুক্ত হবে না। তাই সে বিসমিল্লাহ না বললেও কোনো ক্ষতি হবে না।

-ফাতাওয়া খানিয়া ৩/৩৫৫; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৭/৪৪৯; আদ্দুররুল মুখতার ৬/৩৩৪

শেয়ার লিংক
advertisement
advertisement